জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে আয়শা আক্তার (২২) নামে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা এলাকা থেকে ওই ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধারের বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

আয়শা আক্তার পাঁচবিবি উপজেলার মাঝিনা গ্রামের মোজ্জামেল হকের মেয়ে। তিনি জয়পুরহাট সরকারি কলেজে স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। 

ওসি পলাশ চন্দ্র দেব জানান, আয়শা আক্তার মাঝিনা গ্রামে তার ভাইয়ের বাড়িতে থাকতেন। গতকাল শুক্রবার রাতে তার ভাই-ভাবি বাড়িতে না থাকায় পাশের বাড়ির দুই মেয়েকে নিয়ে একটি কক্ষে টিভি দেখছিলেন। টিভি দেখা শেষে ওই দুই কিশোরীকে ওই কক্ষে রেখে পাশের অন্য একটি কক্ষে ঘুমাতে যান আয়শা। শনিবার সকালে আয়শা ঘুম থেকে না ওঠায় এবং তার কোনো সাড়াশব্দ না পাওয়ায় প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আয়শার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

ওসি আরও জানান, নিহত আয়শার গলায় ওড়না পেঁচানো ছিল। ধারণা করা হচ্ছে তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। কী কারণে এই হত্যার ঘটনা ঘটেছে তদন্তের পর সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে। 

আয়শা আক্তারের বাবা মোজ্জামেল হক বলেন, আমার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। মেয়ে হত্যার বিচার চাই।