শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) চাষাভুষা-জেলে-মজুরসহ সব শ্রমজীবী মানুষের প্রতি সম্মান জানিয়ে  টং দোকানের নামকরণ করেছেন শিক্ষার্থীরা। সম্প্রতি দোকানগুলোর নামকরণ করা হয়েছে। নামগুলো হলো- 'কামলার টং', 'রিকশাওয়ালার টং', 'জাইল্লার টং' ও 'কুলি-মজুরের টং'।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল বাশার রাজ বলেন, 'শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন 'ই' এর সামনে উঠে যাওয়া টং দোকানগুলো আবারও স্থাপন করা হয়েছে। 

তিনি বলেন, আমাদের দাবি অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ৬টি দোকান স্থাপনের প্রতিশ্রুতি দেয়।

শিক্ষার্থী শাহরিয়ার আবেদীন বলেন, 'শ্রমজীবীরা দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখেন। আমরা রাষ্ট্রীয় খরচে পড়াশোনা করি। আর সেই অর্থের মূল যোগানদাতা শ্রমজীবী মানুষরা। তাই তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং শ্রদ্ধা করতেই ‘কামলার টং’, 'রিকশাওয়ালার টং', 'জাইল্লার টং' ও 'কুলি-মজুরের টং' নাম দেওয়া হয়েছে।'

শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে একসময় বেশ কিছু টং দোকান ছিলো।;যেখানে শিক্ষার্থীরা কম দামে খাবার খাওয়া, আড্ডা, গানবাজনা করতেন। পরবর্তীতে সমাবর্তন  ও করোনাকালে টং দোকানগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়।

পরে উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনের সময় শিক্ষার্থীরা একাডেমিক ভবন 'বি' এর পাশে চাষাভুষার টং নামে একটি দোকানের নামকরণ করেন। এরপর আরও কিছু টং দোকান স্থাপনের জন্য প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেন তারা।