ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের (ডিসি) পক্ষ থেকে চাকরির আশ্বাস পেয়ে আমরণ অনশন ভাঙলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) থেকে স্নাতক পাস করা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী এস এম শাহীন আলম। সোমবার সকাল ৯টা থেকে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে আমরণ অনশন শুরু করেন তিনি।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সেলিম রেজা জানান, শাহিন আলমের অনশনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি জেলা প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর বিকেল ৪টায় তাকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে যান।

তখন তিনি স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন, সরকারি চাকরির নিশ্চয়তা না পাওয়া পর্যন্ত অনশন ভঙ্গ করবেন না। পরে সন্ধ্যায় অতিরিক্ত জেলা প্রাসক (সার্বিক) সেলিম রেজা নিজেই সেখানে যান। তখনও একই কথা বলেন শাহীন। অবশেষে জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে রাত সাড়ে ১০টায় তিনি অনশন কর্মসূচি স্থগিত করেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সেলিম রেজা আরও জানান, শাহীন আলমকে শিক্ষকতা ও আউট সোর্সিংয়ের কাজের জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, কিন্তু তিনি ওই কাজ করার ব্যাপারে কোনো ইতিবাচক জবাব দেননি। বিষয়টি জেলা প্রশাসক দপ্তর থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার আযমপুর ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামের কৃষক আবদুল কাদের ও ফারা বেগমের দ্বিতীয় সন্তান শাহীন আলম। তিনি তখন পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। বাড়ির কাছে আলমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। হঠাৎ একদিন জ্বর হয়। ডাক্তার-কবিরাজ দেখিয়ে জ্বর সেরে যায়।

তবে ধীরে ধীরে দৃষ্টিশক্তি সম্পূর্ণ হারিয়ে যায় তার। তবুও থেমে থাকেনি পড়ালেখা। এসএসসি ও এইচএসসিতে ভালো ফলাফলের পর ২০১৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক শেষ করেছেন তিনি। এখন মাস্টার্স শেষ করার অপেক্ষায় আছেন তিনি।

শাহিন আলম জানান, রাতে জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম চাকরির ব্যবস্থা করে দেবেন বলে আশ্বাস দেন। এজন্য তিনি আমরণ অনশন স্থগিত রেখেছেন। চাকরি না পেলে আবারও তিনি অনশনে বসবেন।