রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় শ্যালক বিজন বিশ্বাসের গুলিতে দুলাভাই গোপাল বিশ্বাসের মৃত্যুর ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে উপজেলার বিলজোনা গ্রামে অভিযান চালিয়ে সেই বিদেশি পিস্তল, শুটারগান ও এক রাউন্ড গুলির একটি ম্যাগজিন এবং একটি গুলির খোসা উদ্ধার করেছে পাংশা থানা পুলিশ। এসময় নারীসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন- উপজেলার নাওড়াবন গ্রামের তুষার বিশ্বাসের ছেলে বাধন বিশ্বাস, মন্টু শিকদারের ছেলে আশিক শিকদার ও তপু সরকারের স্ত্রী উর্মি শিকদার।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ৫ মে শ্যালক বিজনের কাছে একটি পিস্তল দেখতে পান দুলাভাই গোপাল। পিস্তলটি কোথা থেকে পেয়েছেন তা জানতে চান গোপাল। এতে তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় গোপালের। এক পর্যায়ে বিজন তার দুলাভাইকে দুটি গুলি করেন। এর দুইদিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান গোপাল।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই পরিমল বিশ্বাস বাদী হয়ে ৭ মে পাংশা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর অভিযান চালিয়ে পুলিশ বিজন ও তার বোন (গোপালের স্ত্রী) চায়না বিশ্বাসকে গ্রেপ্তার করে। তাদের দেওয়া তথ্যমতে বুধবার সকালে অভিযান চালিয়ে বাধন ও আশিককে আটক করা হয়। পরে পুলিশ তাদের নিয়ে কৃষ্ণচন্দ্র সিংহের বাড়ির খড়ের পালার নিচ থেকে বিদেশি পিস্তল, ম্যাগজিন, গুলি এবং গুলির খোসা উদ্ধার করে। পরে আসামি তপু সরকারের স্ত্রী উর্মির কাছ থেকে শুটারগান উদ্ধার করা হয়।

পাংশা থানার ওসি মাসুদুর রহমান জানান, পাংশা থানায় অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। আসামিদের রাজবাড়ী আদালতে পাঠানো হয়েছে।