স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, বাংলাদেশের পরিস্থিতি কখনোই শ্রীলঙ্কার মতো হবে না। বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার দিবাস্বপ্ন দেখছে। তারা স্বপ্ন দেখছে আবারও ক্ষমতায় গিয়ে দেশকে অন্ধকারের দিকে নিয়ে যাবে। ২০০১ সালে ক্ষমতায় গিয়ে তারা দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে গিয়েছিল। দেশের জনগণ কিন্তু তা চায় না। আমরা দেশের জনগণকে নিয়ে রাজনীতি করি। আমাদের রাজনীতি হলো জনগণকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার, দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার।

তিনি বলেন, জনগণ তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে। জনগণ যদি সঙ্গে না থাকে তাহলে কোনো আন্দোলন সফল হয় না। জনগণের আস্থা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আছে। জনগণ জানে শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নাই। কারণ তিনি জনগণকে যা প্রতিশ্রুতি দেন তা বাস্তবায়ন করে দেখান।

মন্ত্রী বুধবার দুপুরে খুলনা শিপইয়ার্ডে কোস্টগার্ডের জন্য নির্মিত ২টি টাগবোট, ৬টি হাই স্পিডবোট, ১টি ফ্লোটিং ক্রেন ও ১টি ইনশোর প্যাট্রোল ভেসেল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন।

এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে যে কোস্টগার্ডের যাত্রা শুরু হয়েছিল, তা এখন সত্যিকার অর্থে ‘গার্ডিয়ান অব সি’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। বাংলাদেশের বাণিজ্যের নব্বই শতাংশই সমুদ্রপথে সম্পন্ন হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত অ্যান ভেন লিউইন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আখতার হোসেন, খুলনা নেভাল এরিয়ার কমান্ডার রিয়ার এডমিরাল এম আনোয়ার হোসেন ও বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল আশরাফুল হক চৌধুরী।

খুলনা শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমডোর এম সামছুল আজিজ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। হস্তান্তর শেষে মন্ত্রী টাগবোট ঘুরে দেখেন এবং এর কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, টাগবোট দুটি ৩ হাজার ৫০০ টন ওজনের যেকোনো জাহাজের বার্থিং/আন বার্থিং, টোউ, পুশ/পুল অপারেশন ছাড়াও ফায়ার ফাইটিং, অন্য জাহাজের দুর্ঘটনাকালীন সহযোগিতা, ডুবন্ত জাহাজের উদ্ধার অভিযান ও অন্যান্য জরুরি কাজ সম্পাদনে ব্যবহৃত হবে।