পাবনার আমিনপুর ও সুজানগর উপজেলায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও গোয়েন্দা পুলিশের পৃথক অভিযানে ৩৩ হাজার লিটার খোলা সয়াবিন তেল জব্দ করা হয়েছে। এ সময় তিন ব্যবসায়ীকে সাড়ে চার লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

পাবনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান জানান, বুধবার বেলা ৩টার দিকে জেলার আমিনপুরে অবৈধভাবে সয়াবিন তেল মজুদের বিরুদ্ধে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে। সে সময় কাশিনাথপুর বাজারের ‘ব্যাংক সুনীলে’র গোডাউনে অভিযান পরিচালনা করে প্রায় ৩০ হাজার লিটার ভোজ্যতেল (সয়াবিন ও পাম অয়েল) জব্দ করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সহযোগিতায় সুনীলকে দুই লাখ ও তার ভাই অনীলকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। পুলিশ সুপার বলেন, জব্দ সয়াবিন তেল দুই দিনের মধ্যে দোকানে সরকার নির্ধারিত মূল্যে সরবরাহ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে দুপুর ১টার দিকে সুজানগর বাজারে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে মজুদ করে রাখা ৩ হাজার ১৩৭ লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। বুধবার দুপুরে উপজেলার পৌর সদরের ঘোষ স্টোরে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ওই দোকান মালিককে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। জব্দ তেলের মধ্যে রয়েছে এক হাজার ৪৩৫ লিটার খোলা তেল ও ১৭০২ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল।

পাবনা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক জহিরুল ইসলাম বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সুজানগর পৌর সদরের ঘোষ স্টোরে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ওই দোকানের একটি গোডাউন থেকে অবৈধভাবে মজুদকৃত এসব তেল জব্দ করা হয়। এসব তেল ঈদ উল ফিতরের আগে ক্রয় করে মজুদ করে রেখে স্থানীয় বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে পরে বেশি দামে বিক্রি করছিল।

তিনি আরও বলেন, অবৈধভাবে তেল মজুদ করায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর ধারা ৪০ ও ৪৫ অনুযায়ী দোকানের মালিক দুলাল ঘোষকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জব্দ তেলের মধ্যে বোতলজাত ১৭০২ লিটার সয়াবিন তেল খোলাবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে।