কুমিল্লায় ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের ওপর গুলিবর্ষণের ঘটনায় লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদের বিরুদ্ধে হওয়া হত্যাচেষ্টা মামলাকে 'মিথ্যা ও ভিত্তিহীন' বলে দাবি করেছেন তার দলের নেতারা। মামলাটি প্রত্যাহারসহ তার নিঃশর্ত মুক্তিরও দাবি জানিয়েছেন তারা। বুধবার কুমিল্লা উত্তর জেলা ও চান্দিনা উপজেলা এলডিপির আয়োজনে কুমিল্লার একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান দলের নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এলডিপির কুমিল্লা উত্তর জেলা সভাপতি মো. সামছুল হক অভিযোগ করেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে গত সোমবার সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও চান্দিনার চারবারের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. রেদোয়ান আহমেদের ওপর সরকার দলীয় স্থানীয় সন্ত্রাসীরা হামলা করে। ওই সময় তিনি আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়েন। পরে তিনি থানায় আশ্রয় নিয়ে গ্রেপ্তার হন। ঘটনার দিন সন্ত্রাসীরা রেদোয়ান আহমেদ ডিগ্রি কলেজ, এলডিপির চান্দিনা অফিস ও তার বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। কিন্তু পুলিশ এসব ঘটনায় মামলা না নিয়ে উল্টো তাকে গ্রেপ্তার করেছে।

এলডিপি নেতারা অভিযোগ করেন, ওই ঘটনা নিয়ে গতকাল বুধবার সকালে প্রশাসনিক নির্বাহী তদন্তের গণশুনানিতে তাদের নেতাকর্মীদের অংশ নিতে দেয়নি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা। শুনানিতে যাওয়ার সময় চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ও এলডিপি নেতাকর্মীদের পথে পথে বাধা দেওয়া হয়। গণশুনানি হয়েছে একতরফা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যক্ষ আবু তাহের, জামশেদ আলম, জাহাঙ্গীর আলম, হুমায়ুন কবিরসহ দল ও অঙ্গসংগঠনের কুমিল্লা উত্তর জেলা ও চান্দিনা উপজেলা শাখার নেতারা।

এ দিকে বাবার মুক্তি দাবি করে ড. রেদোয়ানের ছেলে সুলতান মঈন আহমেদ রবিন বলেন, দেশে পার্সোনাল প্রটেকশন আইন আছে। তার বাবা আত্মরক্ষার জন্য ফাঁকা গুলি করেছেন, নিরাপত্তার জন্য থানায় গিয়েছেন। তিনি অপরাধী হলে থানায় যেতেন না। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ১৬ সেকেন্ডের একটি ভিডিওতে হামলার শিকার হয়ে ফাঁকা গুলি করার দৃশ্য আছে। তিনি কারও গায়েও গুলি করতে পারতেন, তা করেননি। পুলিশ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে তার বাবাকে কারাগারে পাঠিয়েছে। এতে প্রতীয়মান হয়, এই দেশে মানবাধিকার নেই।

ঘটনার নির্বাহী তদন্তের শুনানিতে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ বিষয়ে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম বলেন, কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে চান্দিনা পৌরসভা মিলনায়তনে প্রশাসনিকভাবে নির্বাহী তদন্তের শুনানি হয়েছে। ঘটনাস্থল ও আশপাশের এলাকার লোকজনসহ ১৫ জনের বক্তব্য নেওয়া হয়। চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ ডিগ্রি কলেজের কোনো শিক্ষক কিংবা এলডিপি নেতাদের কেউ শুনানিতে অংশ নিতে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছেন বলে তার জানা নেই।

রেদোয়ানের বিচার চান এমপি প্রাণ গোপাল: ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই কর্মীকে গুলি করায় ড. রেদোয়ান আহমেদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন চান্দিনার সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। গতকাল বুধবার চান্দিনা হাজী সাহেবের মোড়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ দাবি জানান। এ ছাড়া গুলিতে আহত দুই কর্মীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। সকালে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাহমুদুল হাসান জনি ও নাজমুল হাসান নাঈম নামের ওই দুই কর্মীকে দেখতে গিয়ে তিনি এ ঘোষণা দেন।