ফরিদপুরে অভিযান চালিয়ে বোতলজাত ও খোলা মিলিয়ে মোট চার হাজার ৮০০ লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এ সময় তিনটি প্রতিষ্ঠানকে মোট এক লাখ ১২ হাজার টাকার জরিমানা ও একটি প্রতিষ্ঠান ১০ দিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়।

শনিবার বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ের বাজার মনিটরিং টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরের শোভারামপুর এলাকার ব্যবসায়ী কানাই লাল পোদ্দারের গোডাউনে অভিযান চালায়। এসময় গোডাউন থেকে বিভিন্ন কোম্পানির ৪ হাজার লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ও ড্রামভর্তি ৮০০ লিটার খোলা সয়াবিন তেল জব্দ করে।

ফরিদপুর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শেখ সোহেল জানান, প্রথমে আমরা হাজী শরীয়ত উল্ল্যাহ বাজারে কানাই লাল পোদ্দারের দোকানে অভিযান চালায়। সেখানে তেল না পেয়ে তার গোডাউনে অভিযান চালিয়ে এই তেল জব্দ করা হয়। তিনি বলেন, সব তেলই অনেক আগে মজুদ করা। কারণ প্রতিটি বোতলে আগের দাম উল্লেখ করা আছে। তেল জব্দের পরে খবর দেওয়া হয় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন ঢালীকে। পরে লিটন ঢালী উপস্থিত হয়ে সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এসময় লিটন ঢালী জানান, অভিযুক্ত ব্যবসায়ীকে তেল মজুদ করে কৃত্তিম সংকট তৈরির অপরাধে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই সঙ্গে আগামী ১০ দিনের জন্য তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, পরবর্তীতে তিনি যদি এমন কাজ আর করবেন এই মর্মে মুচলেকা দেন তাহলে দোকান খোলার অনুমতি দেওয়া হবে। একই সঙ্গে জব্দ তেল উপস্থিত জনতার মাঝে বোতলে লেখা দামে বিক্রি করা হয়।  

এর আগে হাজী শরীয়তুল্লাহ বাজারে খাদ্য দ্রব্যে উৎপাদনকারীর নাম না থাকায় শিকদার ট্রেডার্সকে ১০ হাজার টাকা এবং দোকানে মূল্য তালিকা না টাঙানোর অপরাধে পূজা স্টোরকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।