সিলেট গ্যাসফিল্ডের আওতাধীন গোলাপগঞ্জ উপজেলার কৈলাশটিলা গ্যাসক্ষেত্রের ৭ নম্বর কূপ থেকে জাতীয় গ্রিডে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়েছে। শনিবার বেলা ১১টা থেকে গ্যাস সরবরাহ শুরু হয় বলে জানিয়েছেন সিলেট গ্যাসফিল্ডের মহাব্যপস্থাপক (পরিচালন) প্রকৌশলী আব্দুল জলিল প্রামাণিক।

তিনি বলেন, এই কূপ থেকে প্রতিদিন ১৯ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। এ দিন সকালে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব হোসেন গ্যাস সরবরাহের উদ্বোধন করেন।

গত ৭ মে থেকে কৈলাশটিলা গ্যাসক্ষেত্রের এই কূপ থেকে জাতীয় গ্রিডে পরীক্ষামূলক গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়। তা সফল হওয়ায় এবার আনুষ্ঠানিকভাবে সরবরাহ শুরু হয়েছে।

২০১৬ সালে কৈলাশটিলার ৭ নম্বর কূপ থেকে গ্যাস উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সিলেট গ্যাসফিল্ডের হয়ে কূপটিতে ওয়ার্কওভার শুরু করে বাপেক্স। গত এপ্রিলের শেষ দিকে ওয়ার্কওভার কাজ শেষ হলে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জাতীয় গ্রিডে গ্যাস সরবরাহ শুরু হল। এতে সরবরাহে উন্নীত হবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

সিলেট গ্যাসফিল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, কৈলাশটিলার এই (৭ নম্বর) কূপ থেকে ওয়ার্কওভারের আগে দৈনিক ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়া তাদের প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু বাস্তবে দৈনিক ১৯ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে। এর সঙ্গে উপজাত হিসেবে দৈনিক ২৫০ ব্যারেল কনডেনসেট মিলবে, যা থেকে ২২ লাখ টাকার জ্বালানি তেল পাওয়া যাবে।

তিনি জানান, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আরপিসের ধারণা মতে, এই স্তরে ৭৫৮ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস মজুদ রয়েছে।