এক সপ্তাহ ধরে ভারী বর্ষণে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার নিচু এলাকার বোরো ধানখেত ডুবে গেছে। সেই ধান কেটে আনার জন্য পাওয়া যাচ্ছে না দিনমজুর। ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। এ অবস্থায় এগিয়ে এসেছে উপজেলার শান্তিরাম ইউনিয়নের পরান গ্রামের কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থী। গত রোববার থেকে পানির মধ্যে ডুবে যাওয়া ধান কেটে দিচ্ছে তারা।

স্থানীয় স্কুলশিক্ষক শরিফুল ইললাম শাহিন জানান, যদিও কৃষক তাদেরকে পারিশ্রমিক দিয়েছে, তারপরও এটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। তাদের দেখাদেখি যদি আরো অনেক শিক্ষার্থী একজোট হয়ে ধান কেটে দেয়, তাহলে কৃষকরা অনেকটা উপকৃত হবে। একই সঙ্গে নিম্নবিত্ত পরিবারের এসব শিক্ষার্থীদেরও শিক্ষা উপকরণ কেনার মতো অর্থ রোজগার হবে।

স্কুল শিক্ষার্থী অন্তর মিয়া জানায়, সে নিজের থেকে উদ্যোগ নিয়ে তার বন্ধুদের আগ্রহী করে তোলে। এরপর কৃষকের ধান কেটে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এতে তাদের লেখাপড়ার তেমন ক্ষতি হবে না। পাশাপাশি এক সপ্তাহ কাজ করলে কিছু টাকা রোজগার হবে। ফলে পরিবারের উপর অর্থনৈতিক চাপ কমবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহমুদ হোসেন মন্ডল বলেন, এটি একটি ভালো উদ্যোগ। এতে শিক্ষার্থীদের মাঝে মানবতাবোধ সৃষ্টির পাশাপাশি স্বাবলম্বী হওয়ার চেষ্টা বাড়বে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল মারুফ বলেন, সামাজিক কাজে শিক্ষার্থীদের উৎসাহী করে তোলা সবার দায়িত্ব ও কর্তব্য।