১১৬ আলেম-ওলামাকে নিয়ে তালিকা প্রকাশকারীদের বিচারের দাবি জানিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম। তিনি বলেন, সংবিধানিকভাবে তারা এ কাজ করতে পারেন না। যারা তালিকা করেছেন, অবিলম্বে তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে।

বুধবার দুপুরে বরিশাল প্রেসক্লাবে ইসলামী আন্দোলনের সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান দলটির সিনিয়র নায়েবে আমির। আগামী শুক্রবার ইসলামী আন্দোলন বরিশালের বিভাগীয় মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এর প্রস্তুতি জানাতে প্রেসক্লাবে দলটির উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, ‘তালিকা প্রকাশ করে তারা দেশের আলেম-ওলামাদের চরিত্র হনন ও তাদের অবমাননা করেছেন।’

সমাবেশ প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলন হলেও মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম সমসাময়িক প্রসঙ্গ নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, বিশ্বে দ্রব্যের মূল্য কিছুটা বৃদ্ধি পেলেও পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমাদের সরকারের কোনো প্রস্তুতি ছিল না। বরং তারা মুনাফাখোরদের সুযোগ করে দিতে সময়ক্ষেপণ করেছেন। এখন পরিস্থিতি এমন যে, মুনাফাখোর ব্যবসায়ীদের লাগাম টেনে ধরার সামর্থ্য সরকারের নেই।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, শিক্ষার্থীদের সিলেবাসে ধর্মীয় শিক্ষা সংকোচন, মদের বিধিমালা বাতিল, স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য বাস্তবায়ন, সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতি ও সন্ত্রাসমুক্ত ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে ১ এপ্রিল ঢাকায় জাতীয় মহাসমাবেশ করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। ওই মহাসমাবেশ থেকে বিভাগীয় শহরগুলোতে মহাসমাবেশ করার কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এরই ধারাবাহিকতা হিসেবে শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর বরিশাল বঙ্গবন্ধু উদানে মহাসমাবেশ হবে।

ফয়জুল করীম বলেন, দাবিগুলো মেনে নেওয়া না হলে তারা সরকার পতনের আন্দোলনে নামবেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক উপাধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, সম্মেলন বাস্তবায়ন কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দ নাসির আহমেদ কাওছার ও মাওলানা মো. ইদ্রিস আলী প্রমুখ।