শিমুলিয়া ঘাটসংলগ্ন পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের বৈদ্যুতিক পিলারে ধাক্কা লেগে একটি ধানবোঝাই ট্রলার ডুবে গেছে। 

এতে ট্রলারের মোট ১৫ জন আরোহীর ১৩ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হলেও এখনও দুজন নিখোঁজ রয়েছে। তারা হলেন, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার রাজারচরের হেলাল ফকির (৫০) ও আলো ফকিরের (৬০)।

মাওয়া নৌ পুলিশ স্টেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু তাহের মিয়া জানান, শনিবার সকাল ৮টার দিকে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। কোস্টগার্ডের সঙ্গে সমন্বয় করে নিখোঁজ দুই যাত্রীকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল আওয়াল সমকালকে বলেন, তারা মুন্সীগঞ্জের আড়িয়াল বিলে ধান কেটে কৃষাণের ভাগের প্রায় ১৫০ মণ ধানসহ বাড়ি ফিরছিলেন। শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজার যাওয়ার পথে তাদের ট্রলার মাঝ নদীতে লৌহজং টার্নিংয়ের কাছে ডুবে যায়। এই সময় ভেসে থাকা ১৩ কৃষাণকে আশপাশের নৌযান উদ্ধার করে তীরে নিয়ে আসে।  

ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা কাজ করছে। কোস্টগার্ডের টহল টিম পদ্মায় দুর্ঘটনাস্থল চিহ্নিত করার চেষ্টা করছে। 

আব্দুল আওয়াল বলেন, ‘কৃষাণরা ভাড়া ট্রলারে করে পদ্মা পার হচ্ছিল। তবে উত্তাল পদ্মায় ট্রলার চলাচল নিষিদ্ধ থাকলেও কেন চলাচল করছিল সে ব্যাপারেও পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’