বৃহস্পতিবার রাতে খাওয়াদাওয়া শেষে ঘরে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন মনোয়ারা বেগম (৪২)। শুক্রবার ভোরে সাড়ে ৪টার দিকে স্বামী রেহান উদ্দিনের ঘুম ভাঙলে দেখেন বিছানায় পাশে স্ত্রী নেই। এরপর সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করে তার সন্ধান পাননি। 

পরে নগরীর শেখপাড়ার বাসিন্দা রেহান উদ্দিন স্ত্রীর নিখোঁজ সংবাদ জানিয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর শুক্রবার রাতে সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের চরুগাঁওয়ের সুরমা নদী থেকে মনোয়ারার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শনিবার ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পরিবার ও থানা পুলিশের বরাতে মহানগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের জানান, মনোয়ারা বেগম বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। বৃহস্পতিবার রাতে খাওয়ার পর তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। রাত সাড়ে ৪টার দিকে স্বামী রেহান উদ্দিন ঘুম থেকে ওঠে স্ত্রীকে ঘরে পাননি। এ ঘটনায় শুক্রবার রেহান জালালাবাদ থানায় জিডি করেন। সেদিন রাতেই চরুগাঁও এলাকায় সুরমা নদীতে নারীর লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। এরপর পুলিশ খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, নদী থেকে উদ্ধার করা লাশটি ভোরে নিখোঁজ নারী মনোয়ারার। এই ঘটনায় আইনি প্রক্রিয়া চলমান বলেও জানান তিনি।