ময়মনসিংহে প্রেমের পর তরুণ-তরুণীর বিয়ে মেনে নেওয়া না নেওয়াকে কেন্দ্র করে মো. রফিকুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

রোববার রাতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার পরে। 

পরে সোমবার বিকেলে আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, নগরীর মাসকান্দা দক্ষিণপাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. রফিকুল ইসলামের মেয়ের সঙ্গে শিকারীকান্দা মীরবাড়ি এলাকার আনোয়ার হোসেনের মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত রমজানে আনোয়ারের ছেলে উসমান মিয়া বিয়ে করেন। কিন্তু সেই বিয়ে মেনে নিতে পারছিলেন না ছেলের মা রানু বেগম। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মতানৈক্য থেকে রোববার সন্ধ্যায় মাসকান্দা দক্ষিণপাড়া শাহী মসজিদের পাশের একটি দোকানের ভেতর রফিকুলকে ছুরিকাঘাত করে রানুর ভাইয়েরা। ওই সময় গুরুতর অবস্থায় রফিকুলকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই বাদল মিয়া বাদী হয়ে রাতেই কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলায় এজাহারে ৫ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ রাতেই নগরীর শম্ভুগঞ্জ এলাকা  থেকে এজাহারভুক্ত চার আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলেন- মাসকান্দা হাইস্কুল রোডের বাসিন্দা মন্তাজ আলী, তার ছেলে আনিস আহম্মেদ, মো. সাদ্দাম ও মেয়ে মোছা. রানু বেগম। পরে সোমবার বিকেলে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শাহ কামাল আকন্দ বলেন, বিয়ে নিয়ে মতানৈক্যের জেরে হত্যার ঘটনাটি ঘটে। হত্যা মামলায় ৫ আসামির মধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।