চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ হওয়ার পর আবারও বালু উত্তোলন শুরু করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম খান। তিনি তথ্য গোপনসহ নানা কৌশলে উচ্চ আদালতে আবারও বালু উত্তোলনের অনুমতি নেওয়ার জন্য আবেদন করেন।

তবে এবার মামলার শুনানি শেষে সরাসরি মামলাটি খারিজ করে দিয়েছেন উচ্চ আদালত। দুই দিনের শুনানি শেষে সোমবার এ রায় দেন বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া এবং বিচারপতি খিজির হায়াতের উচ্চ আদালতের বেঞ্চ।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান। তিনি বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম খান আবারও চাঁদপুর সদর উপজেলা ও হাইমচরের ৫টি মৌজায় বালু উত্তোলনের অনুমতি দেওয়ার জন্য, নিজ খরচে হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে করার দাবিতে আবারও একটি রিট মামলা দায়ের করেন গত এপ্রিল মাসে। আদালত রবি ও সোমবার এ দুই দিন শুনানি করেন।

তিনি বলেন, বালু উত্তোলন-সংক্রান্ত আইনের বিধান আমরা আদালতকে দেখিয়েছি। আরেক মামলায় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে যে স্থগিতাদেশ আছে, সেটিও আদালতের নজরে এনেছি। সবকিছু দেখানোর পর আদালত সন্তুষ্ট হয়েছেন। তাঁদের কোনো বক্তব্যে আদালত সন্তুষ্ট হননি। সে কারণে আদালত সরাসরি মামলাটি খারিজ করে দিয়েছেন।