রংপুরে গৃহবধূ হত্যার দায়ে লাভলু মিয়া (৪৫) নামে একজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে রংপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম এ রায় ঘোষণা করেন। এ সময় আদালতে আসামি উপস্থিত ছিলেন। পরে পুলিশি পাহারায় তাকে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়। লাভলু মিঠাপুকুর উপজেলার শংকরপুর উত্তরপাড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই রাতে শংকরপুর মধ্যপাড়া গ্রামের খোরশেদ আলমের মা রেহেনা বেগমের ঘরে চুরি করতে ঢুকে লাভলু। এ সময় রেহেনা বেগমের কানে থাকা সোনার দুল ছিনিয়ে নেওয়ার সময় তিনি লাভলুকে চিনে ফেলেন। লাভলুর নাম ধরে ডাকার সাথে সাথে পাথর দিয়ে রেহেনার মাথায় মেরে হত্যা করে লাভলু।

এরপর লাশ বাড়ির অদূরে বাঁশঝাড়ে ফেলে চলে যায় লাভলু। এ ঘটনায় রেহেনার ছেলে খোরশেদ বাদী হয়ে মিঠাপুকুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করলে পুলিশ লাভলুকে গ্রেপ্তার করে। লাভলী পুলিশের কাছে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

পুলিশ তদন্ত শেষে লাভলুর নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। ২১ জন সাক্ষীর জবানবন্দি ও জেরা শেষে আদালত মঙ্গলবার লাভলুর আমৃত্যু কারাদণ্ডসহ ৩ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জয়নাল আবেদীন বলেন, রায়ে বাদীপক্ষ সন্তোষ প্রকাশ করেছে। অপরদিকে ন্যায্য বিচার পাওয়া যায়নি এবং রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে বলে জানান আসামিপক্ষের আইনজীবী সুলতান আহমেদ।