স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে ফৌজদারি মামলা বিচারাধীন থাকার পরও নোয়াখালীর হাতিয়ার এসিল্যান্ড সারোয়ার সালামকে পোস্টিং দেওয়া কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। 

বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রুল জারি করেন। 

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রীপরিষদ সচিব, জনপ্রশাসন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিবসহ সংশ্নিস্ট ৭ জনকে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আজিজুর রহমান দুলু ও ইশরাত হাসান।

পরে ইশরাত হাসান সাংবাদিকদের বলেন, পরকীয়া সম্পর্কের জেরে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে সারোয়ার আলমের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। গত বছরে ৩১ জানুয়ারি ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল মামলাটি আমলে নেন; যা এখনও বিচারাধীন। 

এছাড়া তার বিরুদ্ধে ডিপার্টমেন্টাল প্রসিডিং পেন্ডিং রয়েছে। 

এ অবস্থায় সারোয়ার সালামকে নরসিংদী পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে পোস্টিং দেওয়া হয়েছে। 

অথচ ফৌজদারি মামলা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় কোন ব্যক্তিকে পোস্টিং দেওয়া আইনের পরিপন্থী। এ জন্য বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করে রিটটি দায়ের করা হয়েছে।