কক্সবাজারের চকরিয়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২ সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে এক গ্রুপের প্রধান নিহত হয়েছে। তার নাম আমির হোসেন (৪০)। গত সোমবার রাতে উপজেলার রিজার্ভ পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এরপর তার গ্রুপের লোকজন মালুমঘাট বাজারে ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে।

একটি সূত্র দাবি করেছে, অন্য গ্রুপের প্রধান আবদুর রহমানের সশস্ত্র ক্যাডারদের হাতে আমির হোসেন নিহত হয়েছে। ফলে ২ পক্ষের আরও বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে রিজার্ভ পাড়ার লোকজন।

চকরিয়া থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ওই এলাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ বাহিনী তৎপর রয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো আসামি গ্রেপ্তার হয়নি। কোনো মামলাও দায়ের করেনি। তিনি আরও বলেন, নিহত আমির হোসেন হত্যা, ডাকাতিসহ অসংখ্য মামলার পলাতক আসামি।

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের ডুলাহাজারা বনবিটের সংরক্ষিত বনভূমিতে রিজার্ভ পাড়ার অবস্থান। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দিনের বেলা পাড়াটি শান্তিপূর্ণ। তবে রাতের জগৎ সম্পূর্ণ ভিন্ন। রাতে এখানে দাপিয়ে বেড়ায় অর্ধশতাধিক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী। তাদের বিরুদ্ধে প্রায়ই পাড়ার মেয়েদের ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। ভয়ে ও লোকলজ্জায় সবাই নীরব থাকতে বাধ্য হচ্ছে।

ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাসানুল ইসলাম বলেন, সন্ত্রাসীদের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে পাড়ার বাসিন্দারা তাকে জানিয়েছেন। জনস্বার্থে বিষয়টি গত ৭ মে 'ওপেন হাউস ডে'-তে পুলিশ সুপার ও চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এবং ওসির সামনে তা উপস্থাপন করেছেন। বিষয়টি শুনে এসপি হাসানুজ্জামান সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দেন। একই সঙ্গে সন্ত্রাসীদের তালিকা থানা এবং পুলিশ সুপারের দপ্তরে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন। সে মোতাবেক একটি তালিকাও করা হয়েছে।