সিরাজগঞ্জ-৩ (তাড়াশ-রায়গঞ্জ) আসনের এমপি অধ্যাপক ডা. আব্দুল আজিজের 'অনিয়মের' জন্য এবার 'ফেসবুকে' স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চাইলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হোসেন মনসুর। সোমবার রাতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক তাড়াশের অধিবাসী হোসেন মনসুর গত সংসদ নির্বাচনে আব্দুল আজিজের প্রতীক নৌকার পক্ষে ভোট চান। তিনিই আবার এমপি আব্দুল আজিজকে 'হাইব্রিড' বলে মন্তব্যসহ বিভিন্ন সমাবেশে তুলাধুনা করছেন। এবার দিলেন ফেসবুকে স্ট্যাটাস।

'মনোনয়ন চাই বা না চাই, ক্ষমা প্রার্থী' শিরোনামে নিজের ছবিসহ পোস্টে গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেওয়া প্রতিশ্রুতি প্রত্যাহার করে রায়গঞ্জ-সলঙ্গা-তাড়াশবাসীর কাছে ক্ষমা চান হোসেন মনসুর। আব্দুল আজিজকে ইঙ্গিত করে ফেসবুকে তিনি লেখেন, 'একটি মানুষের ওপর বিশ্বাস রেখে পাঙ্গাসী, ধানগড়া, সাহেবগঞ্জ ও তাড়াশের জনসভায় আমি অঙ্গীকার করেছিলাম, এই ব্যক্তিটি যদি দুর্নীতি করে, মানুষের নিকট অবৈধভাবে অর্থ গ্রহণ করে, সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা বা গরিবের বরাদ্দ করা সরকারি অনুদান আত্মসাৎ করে অথবা পরিবারতন্ত্র চালু করে, তাহলে আমার পিঠে তোমরা চাবুক মেরো। এর আগে যদি আমি মারাও যাই তবে আমার কবরে চাবুক মেরো। মানুষের অভিযোগ ও তথ্যের ভিত্তিতে আমি তার ওপর আস্থা হারিয়েছি। আমি আমার অঙ্গীকারের জন্য অনুতপ্ত। তাই ক্ষমা প্রার্থনা করছি।'

ড. হোসেন মনসুর বুধবার সমকালকে বলেন, গত নির্বাচনে ডা. আব্দুল আজিজ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেও এলাকার কেউই তাকে চিনত না। আমি তাকে নিয়ে জনসভা করি। সে সময় যেসব অঙ্গীকার করেছিলাম, তার উল্টো হয়েছে। তার অপকর্ম ও দুর্নীতি এবং পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ ও তথ্য আছে। জনগণের কাছে তার জন্য ক্ষমা চেয়েছি।

তিনি আরও বলেন, গত ২৬ মার্চ তাড়াশের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিব কলেজে আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানে হাজার হাজার লোকের সামনে তার অপকর্ম ও দুর্নীতি এবং পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে জনসমক্ষে মাইকে বলেছি। এমনকি তাকে হাইব্রিড বলেও মন্তব্য করেছি।

এ বিষয়ে ডা. আজিজ সমকালকে বলেন, ড. হোসেন মনসুর স্যার এর আগে জনসমক্ষে আমার বিরুদ্ধে নানা ধরনের নেতিবাচক মন্তব্য করলেও পরে ইফতার অনুষ্ঠানে হাজার হাজার লোকের সামনে ক্ষমা চেয়েছেন। আবারও তিনি অপপ্রচার শুরু করেছেন।