নদীতে স্রোত বেড়ে যাওয়ায় দুর্ঘটনা এড়াতে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে মাঝিরকান্দি-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ করা হয়। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের মেরিন অফিসার আহম্মদ আলী সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আহম্মদ আলী জানান, শিমুলয়া ঘাট থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে পদ্মা সেতুর কাছাকাছি প্রবল ঘূর্ণিস্রোত বয়ে যাচ্ছে। এর ফলে দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য এই নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে আসলে ফেরি চলাচল চালু করা সম্ভব হবে।

এদিকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পদ্মার দুই পাড়ে প্রায় পাঁচ শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। এই নৌরুটে ফেরি বন্ধ থাকায় লঞ্চ ও সি বোটে যাত্রীদের চাপ অনেকটাই বেড়ে গেছে।

খুলনার ডুমুরিয়া থেকে আসা তাহমিনা আক্তার জানান, সকাল ৭টায় অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে ঘাটে সিরিয়াল ধরে বসে আছি। অসুস্থ মাকে নিয়ে ঢাকা যাবো। সকাল ৯টায় ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেল। আমার মতো শত শত যাত্রীরা বিপাকে পড়েছেন পদ্মা পারাপার নিয়ে।

বিআইডব্লিউটিসি'র বাংলাবাজার ফেরি ঘাটের টার্মিনাল সুপারভাইজার মো. কামরুল ইসলাম বলেন, বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে মাঝিরকান্দি রুটে ৭টি ফেরি চলছে।