জয়পুরহাটের কালাইয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে শিপন আক্তার (৪৫) নামে চার সন্তানের এক মাকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে। শুক্রবার রাতের কোন এক সময়ে  দুধাইল-নয়াাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কালাই থানার ওসি এস এম মঈনুদ্দিন। তবে ঘটনার পরপরই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারজানা, সহকারি পুলিশ সুপার (সিআইডি) সরোয়ারদি হোসেন এবং সহকারি পুলিশ সুপার (সার্কেল) ইশতিয়াক আহম্মেদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহত শিপন আক্তার একই গ্রামের তোজাম হোসেন সরকারের স্ত্রী। তাদের তিন ছেলে এবং এক মেয়ে রয়েছে।  

নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাতে খাবারের পর ঘরের দরজা খোলা রেখে শিপন আক্তার নিজ শয়নকক্ষে শুয়ে পড়েন। অন্যদিকে ছেলে শিহাবসহ (২০) তার বাবা অন্য একটি ঘরে ঘুমাতে যান। সকালে উঠে গলা কাটা অবস্থায় শিপন আক্তারের মৃতদেহ ঘরের মধ্যে পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের লোকজন থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

নিহত শিপন আক্তারের স্বামী ও ছেলে শিহাব জানান, জমি-জমা নিয়ে তাদের সাথে প্রতিপক্ষ কয়েক জনের দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলছিল। দুর্বৃত্তরা শিপনকে গলা কেটে হত্যা করে থাকতে পারে বলে অভিযোগ তাদের।

তবে প্রতিবেশীদের দাবি, ওই নারীর স্বামী তোজাম হোসেন সরকার এবং ছেলে শিহাবকে আলাদা করে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করলেই এই হত্যাকাণ্ডের মুল রহস্য বের হয়ে আসবে।

কালাই থানার ওসি এস এম মঈনুদ্দী জানান, এ ব্যাপারে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। প্রকৃত হত্যাকারীদের শনাক্ত করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হবে। তবে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্বামী ও ছেলে পুলিশের নজরে রয়েছে।