ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে এক গ্রাহকের বিরুদ্ধে পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তার গলায় ছুরি ঠেকিয়ে বিচ্ছিন্ন করা সংযোগ পুনরায় লাগিয়ে দিতে বাধ্য করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। 

 শনিবার দুপুরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সানগাঁও গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে পুলিশের সহযোগিতায় ওই গ্রাহকের সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পল্লী বিদ্যুতের বালিয়াডাঙ্গী শাখার এজিএম কামরুল হাসান দলবল নিয়ে বকেয়া আদায় করতে সানগাঁও গ্রামে গ্রাহক গফফারের বাড়িতে যান। সাত মাসের বিদ্যুৎ বিলের বকেয়া ছিল তার। তারা প্রথমে বিলের বকেয়া টাকা চান। কিন্তু বকেয়া টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে এই গ্রাহকের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন তারা। 

এ সময় ওই গ্রাহক বাড়ির ভেতর থেকে ছুরি এনে কামরুল হাসানের গলায় ঠেকিয়ে পুনরায় সংযোগ দিতে বাধ্য করেন ওই দলকে। এক পর্যায়ে পল্লী বিদ্যুতের লোকদের জিম্মি করে রাখেন তিনি। পরে বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে।

এই ব্যাপারে অভিযুক্ত গ্রাহক গফফার বলেন, গতকালকে বিদ্যুৎ বিলের কপি হাতে পেয়েছি। আগামী রোববার বিল জমা করার কথা ছিল। বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন করলে পুনরায় সংযোগ নিতে ঝামেলা হবে সেই ভেবে আমরা পল্লী বিদ্যুতের লোকদের সঙ্গে না বুঝে খারাপ ব্যবহার করেছিলাম। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে বিষয়টি সমাধান করেছি। তবে এখন বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন রয়েছে।

পল্লী বিদ্যুতের বালিয়াডাঙ্গী শাখার এজিএম কামরুল হাসান বলেন, একজন গ্রাহক আমাদের সঙ্গে অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ করেছেন। পরিবারের লোকজন নিয়ে আমাদের হত্যা চেষ্টা চালিয়েছেন। পরে পুলিশ বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আনে। এলাকাবাসী ও অভিযুক্ত পরিবারটির অনুরোধে এখন পর্যন্ত মামলা দায়ের করিনি। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল আনাম ডন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাটি প্রাথমিকভাবে তারা সমাধান করে নিয়েছেন। মামলা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।