চুয়াডাঙ্গা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সীমানা প্রাচীর, প্রধান ফটক পুনর্নির্মাণ কাজ এখন চলছে। এ কাজে ৬০-৬৫ বছর আগের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে বলে
অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়দের দাবি, ১ কোটি ৩৮ লাখ ৫০ হাজার টাকার কাজে ৫ লাখ টাকার স্যালভেজের নামে ঠিকাদারকে শতভাগ পুরোনো
ইট ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

জেলা পাউবোর সীমানা প্রাচীর নির্মাণে প্রায় ৭৩ লাখ টাকা, প্রধান ফটক, নির্বাহী প্রকৌশলী ও উপবিভাগীয় প্রকৌশলীর বাসভবন রংকরণ ৩১ লাখ ৫০ হাজার, অফিস ও বাংলো মেরামত ৩৪ লাখ টাকা চুক্তিমূল্যে ধরা হয়েছে। গত ১১ মার্চ থেকে পটুয়াখালীর মেসার্স আবুল কালাম আজাদ নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ কাজ করেছে। ২৩ জুন কাজ শেষ হওয়ার কথা।

স্থানীয়দের ভাষ্য, প্রায় ৬০-৬৫ বছরের পুরোনো ইট দিয়ে নতুন প্রাচীর নির্মাণ করা হচ্ছে। এসব ইট একেবারে ব্যবহারের অনুপযোগী। এসব ইট দিয়ে কাজ করলে ১০ বছরও টিকবে না। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি কাজ না করে চুয়াডাঙ্গার বিশ্বজিৎ কুমারের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে গণপূর্ত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত এক প্রকৌশলী জানান, সরকারের প্রতিটি স্থাপনার আয়ু ১০০ বছর ধরে নির্মাণ করা হয়। কোনো কাজে পুরোনো ইটের ব্যবহার কখনোই নতুন ইটের সমকক্ষ হতে পারে না। তিনি বলেন, '৬০-৬৫ বছরের পুরোনো ইট দিয়ে নির্মাণকাজ করলে আয়ু ১০০ বছর থেকে ইটের বয়স বাদ দিতে হবে। অর্থাৎ নতুন স্থাপনা টিকবে ৩৫-৪০ বছর।'

পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফ আহমেদ জানান, নির্মাণকাজে ৭০ শতাংশ পুরোনো ইট স্যালভেজ হিসেবে ব্যবহারের জন্য কার্যাদেশে উল্লেখ করা হবে। এ পর্যন্ত ৩৫ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। যেখানে পুরোনো ইট ব্যবহার হলেও ইট খারাপ ছিল না।

নির্বাহী প্রকৌশলী দাবি করেন, ঠিকাদার কাজ বিক্রি করেননি। তাঁর প্রতিনিধি হিসেবে বিশ্বজিৎ দেখাশোনা করছেন। তিনি বলেন, 'পুরোনো ইট দিয়ে নতুন কাজে কোনো সমস্যা নেই। ইটের বয়স যত বেশি হয়, ততই মজবুত হয়। তা ছাড়া এ সরকারের পাঁচ লাখ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে।'

পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নগর উন্নয়ন কমিটির সভাপতি কামরুজ্জামান চাঁদ বলেন, 'এ কাজে ৭০ ভাগ ব্যবহার উপযোগী পুরোনো ইট দিয়ে করার কথা থাকলেও একেবারে ব্যবহারের অনুপযোগী ১০০ ভাগ ইট দিয়ে করা হচ্ছে। আমরা আশা করছি, কর্তৃপক্ষ বিষয়টির ওপর নজর দেবে।'
নির্মাণকাজে পুরোনো ইটের ব্যবহার করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিষয় : পুরোনো ইট দেয়াল নির্মাণ চুয়াডাঙ্গা পানি উন্নয়ন বোর্ড

মন্তব্য করুন