যুক্তরাষ্ট্রে টেক্সাসের স্কুলে হামলার ঘটনায় ২১ জন নিহত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় সব স্কুল এলাকায় পুলিশ প্রহরা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

নিউ ইয়র্কসহ গোটা যুক্তরাষ্ট্রে উদ্বেগ বিরাজ করছে। ঘটনার পরদিন ২৫ মে বুধবার স্কুলে শিশুদের ভয়ে ভয়ে পৌঁছে দিতে দেখা গেছে অভিভাবকদের।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট থেকে প্রভাবশালী আইনপ্রণেতারা আমেরিকার আগ্নেয়াস্ত্র আইন নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। মার্কিন সংবিধানে অস্ত্র রাখার অধিকার দেয়া ২য় সংশোধনী নিয়ে আবারও বিতর্ক শুরু হয়েছে।

নিউ ইয়র্কের রাজ্য গভর্নর ক্যাথি হোচুল রাজ্যের সব স্কুল এলাকায় পুলিশের উপস্থিতি নিশ্চিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। বছরব্যাপী এ নজরদারি অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়েছে। অন্যান্য রাজ্যেও একই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বাফেলো বা টেক্সাসের মতো ঘটনা প্রতিরোধ করার উপায় নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে।

গভর্নর ক্যাথি হোচুল বলেছেন, লোকজন বেড়ে ওঠা পেট্রোলের মূল্য, দ্রব্যসামগ্রী নিয়ে উৎকণ্ঠায় আছেন। সন্তানদের নিরাপত্তা নিয়ে আতঙ্কে আছেন। এমন অবস্থায় রাজ্যের পুলিশ ও স্থানীয় আইনশৃংখলা বাহিনী জনগণের পাশে থাকবে বলে সবাই আশা করেন।

নিউ ইয়র্কে শুধু চলতি বছরেই ৪১০০টির বেশি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। পেনসিলভেনিয়াসহ অন্যরাজ্য থেকে নিউ ইয়র্কে প্রতিদিন অবাধে অস্ত্র আসছে।

গভর্নর হোচুল বলেন, ১৪ মে বাফেলো ঘটনার পর পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়েছিল। এরইমধ্যে আবার টেক্সাসের ঘটনায় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হচ্ছে। আমরা কি পতাকা অর্ধনমিত রেখেই শোক জানাতে থাকব?

আমেরিকায় মহামারি পরবর্তী বাস্তবতায় জনমানসের পরিবর্তন নিয়ে সামাজিক উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। ২৪ মে মঙ্গলবার টেক্সাসের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্দুকধারীর গুলিতে ১৯ শিক্ষার্থীসহ ২১ জন নিহত হয়। বন্দুকধারী সালভাদর রামোস ১৮ বছরের শ্বেতাঙ্গ যুবক। একই স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী সে। পুলিশের গুলিতে রামোস নিহত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।