বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করার শক্তি আওয়ামী লীগের রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। 

তিনি বলেন, ২০২৩ সালের জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপিসহ বিভিন্ন ছোট ছোট রাজনৈতিক দল আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে। বিভিন্ন সময়ে তারা হুমকি দিয়ে আসছে, শুধু হুমকির মধ্যেই তারা আছে। তারা বলে ঈদের পরে আন্দোলন করব, এখন বলবে আগামী পূজার পরে, বর্ষাকালের পরে বা সামনে বসন্তকাল আসছে, তখন কঠোর আন্দোলন করব। এগুলো আমরা মোকাবেলা করে এসেছি। 

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করার জন্য আওয়ামী লীগ একাই যথেষ্ট। 

বৃহস্পতিবার সকালে নাটোরের সদর উপজেলার খোলাবাড়িয়ায় ঔষধি গ্রাম পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বিএনপি আন্দোলনের নামে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে চায়, দেশকে পিছনে নিয়ে যেতে চায়। আর আওয়ামী লীগ বিএনপির আন্দোলন মোকাবিলা করে দেশকে আরও সামনের দিকে নিয়ে যেতে চায়। বর্তমান সরকার বৈধ ও সাংবিধানিক সরকার। এ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে সরকারের দায়িত্ব হল- সকল মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়া। কাজেই আন্দোলন সংগ্রামের নামে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যমূলক কর্মকাণ্ড বিএনপিকে করতে দেওয়া হবে না।

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল সেক্টরে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেছেন। এর ফলে আওয়ামী লীগের ভিত্তি হয়েছে দেশের আপামর জনগণ। এসব উন্নয়নমূলক কাজের জন্যই দেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় আনবে। অন্যদিকে বিএনপি আর কোনদিন মানুষের নিকট গ্রহণযোগ্যতা পাবে না।

এর আগে মন্ত্রী ঘৃতকুমারী বা অ্যালোভেরার মাঠ পরিদর্শন ও কৃষকদের সাথে মতবিনিময় করেন। খোলাবাড়িয়া গ্রামে প্রায় ৪৫০০ কৃষক ঘৃতকুমারীসহ বিভিন্ন ঔষধি ফসল চাষ করছেন। ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, বাজারজাতে সমস্যাসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা এসময় কৃষকেরা তুলে ধরেন এবং ঔষধি ফসল চাষের সুরক্ষায় ও বিকাশে সরকারের দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান।

কৃষিকে লাভজনক ও বাণিজ্যিক করতে সরকার অপ্রচলিত অর্থকরী ফসল চাষেও উৎসাহ ও প্রণোদনা দিচ্ছে উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে ও আন্তর্জাতিক বাজারে এই অ্যালোভেরার অনেক চাহিদা রয়েছে। খোলাবাড়িয়া গ্রাম অ্যালোভেরাসহ বিভিন্ন ঔষধি ফসল চাষের উদাহরণ। এর চাষ সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া ও সুষ্ঠু বাজারজাতে সব ধরনের সহযোগিতা দেয়া হবে। কম সুদে ঋণ প্রদান, রপ্তানির ব্যবস্থা ও প্রক্রিয়াজাতে উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

নাটোরের কৃষিপণ্য সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন ফসল রাখার সমন্বিত বা মাল্টিপল কোল্ড স্টোরেজ শীঘ্রই নির্মাণ করা হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী। 

পরিদর্শনকালে নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর- ১ আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল,সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ, কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য উম্মে কুলসুম স্মৃতি, সংসদ সদস্য শামীমা ইয়াসমিন,  সংসদ সদস্য হোসনে আরা, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বেনজীর আলম, ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহজাহান কবীর, পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম, নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ,পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজান উপস্থিত ছিলেন।