শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার গারো পাহাড়ে খাবারের সন্ধানে আসা এক হাতির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের গজনী বিট সীমান্তের বেড়বেড়ি এলাকা থেকে হাতিটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে গত কয়েক বছরে গারো পাহাড়ের বিভিন্ন স্থানে ২৯টি হাতির মৃত্যু হলো।

বন বিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় বাসিন্দারা বেড়বেড়ি এলাকায় একটি হাতির মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে বন বিভাগকে খবর দেন। এরপর রাংটিয়া রেঞ্জের গজনী বিটের কর্মকর্তা এবং বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের কর্মকর্তারা হাতির মরদেহটি উদ্ধার করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মৃত হাতিটির পেট ফুলে গিয়ে শরীর থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল। তাদের ধারণা, একদিন আগে হাতিটি মারা গেছে।

বন বিভাগের ঝিনাইগাতীর রাংটিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মকরুল ইসলাম আকন্দ সমকালকে বলেন, হাতিটির ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

শেরপুর বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ কর্মকর্তা সুমন সরকার বলেন, হাতিটির বয়স সাত থেকে আট বছর হবে। এটি একটি পুরুষ হাতি। গত কয়েক বছরে পাহাড়ের বিভিন্ন স্থানে ২৯টি হাতি মারা যায়।

ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারুক আল মাসুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, আগামীকাল মৃত হাতিটিকে মাটিচাপা দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত দুই সপ্তাহ ধরে শেরপুরের গারো পাহাড়ের কাংশা ও নলক্থড়া ইউনিয়নে খাবারের সন্ধানে এক পাল হাতি প্রায় প্রতিদিনই লোকালয়ে যাতায়াত শুরু করে।