সীতাকুণ্ডের কদমরসুল এলাকায় বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে ১৯ জন নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের একজন কর্মীও রয়েছেন বলে জানা গেছে।

এই বিস্ফোরণে দেড় শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন। হতাহত ব্যক্তিদের মধ্যে ডিপোর শ্রমিকদের পাশাপাশি পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরাও রয়েছেন।

শনিবার রাতে আগুন লাগার পর রাত পৌনে ১১টার দিকে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আহত ব্যক্তিদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। রাত থেকে আজ সকালে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত একে একে নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১৯ হয়েছে।

নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকের পরিচয় জানা যায়নি। সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক সাংবাদিকদের বলেন, বিস্ফোরণে তাদের থানার কনস্টেবল তুহিনের এক পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আরও অন্তত পাঁচ কনস্টেবল, ফৌজদারহাট পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) মোতাহার হোসেন এবং শিল্প পুলিশের একাধিক সদস্য আহত হয়েছেন। এ ছাড়া ফায়ার সার্ভিসের এক সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে আজ সকালেও সীতাকুণ্ডের কনটেইনার ডিপোর ভেতর থেকে ছয়জনের লাশ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। লাশগুলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে।

ডিপোর ভেতর থেকে উদ্ধার করা লাশগুলোর মধ্যে তিনজনের পরিচয় জানা গেলেও অন্যদের নাম–পরিচয় জানা যায়নি। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের একজন কর্মীও রয়েছেন।

ডিপোর ভেতর থেকে উদ্ধার করা লাশের মধ্যে যে তিনজনের পরিচয় জানা গেছে, তারা হলেন- ডিপোর আইসিটি কাউন্টারে কতর্ব্যরত মবিনুল হক, মহিউদ্দিন (২৪) ও হাবিবুর রহমান (২৩)। তাদের মধ্যে মবিনুল ও মহিউদ্দিনের বাড়ি বাঁশখালী উপজেলায়। হাবিবুরের বাড়ি ভোলায়।