লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার নওদাবাস ইউনিয়নে স্কুল শিক্ষার্থীকে লাঠিপেটা করার ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

শনিবার রাতে উপজেলার নওদাবাস ইউনিয়নের কেতকিবাড়ি হাট থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন অভিযুক্ত সিফাতের বাবা  হাসানুর রহমান ও জয়ের বাবা দুলু মিয়া।  

হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এরশাদুল আলম সমকালকে জানান, আসামি দুজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের ধরতে পুলিশি অভিযান চলছে। 

বৃহস্পতিবার বিকালে ইউনিয়নের কেতকীবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র মেহেদী হাসান লিখনকে বেধড়ক লাঠিপেঠা করে ওই এলাকার সিফাত ও জয় নামের দুই বখাটে যুবক। অপর বখাটে মাহবুবুর লাঠিপেটার দৃশ্য ফেসবুকে লাইভ করেন। 

মুহূর্তে মারধরের সেই ভিডিও ভাইরাল হলে পুরো জেলায় সচেতন মহলে ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় উঠে। এ ঘটনায় বখাটেদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে শনিবার দুপুরে স্কুলের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা বর্জন করে স্কুল মাঠে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। 

এর আগে শুক্রবার বিকেলে মেহেদীর বাবা রাকিব হাসান বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে হাতীবান্ধা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। 

ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার সিফাত ও জয়সহ কয়েকজন বখাটে বিদ্যালয়ে হামলা করে শিক্ষার্থীদের মারধর করেন। 

এ নিয়ে দুপুরে বিদ্যালয়ে সালিশ বৈঠক বসলে মেহেদী হাসান ও তার কয়েকজন বন্ধু হামলাকারীদের নাম বলে দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিকালে  মেহেদীকে স্থানীয় এক মাদ্রাসায় ডেকে এনে  সিফাত ও জয়সহ কয়েকজন বখাটে মারপিট করে। 

সিফাত নওদাবাস গ্রামের হাসানুর রহমানের ছেলে ও জয় একই গ্রামের হাসানুর রহমানের ছেলে বলে জানা যায়।