ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক কিশোরীকে হাত-মুখ বেঁধে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে তিন যুবকের বিরুদ্ধে। শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার চরযশোরদি ইউনিয়নের দহিসারা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। রাতেই কিশোরীর বাবা ওই তিন যুবকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন।

অভিযুক্তরা হলেন- চরযশোরদী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান পথিক তালুকদারের ছোট ভাই পলাশ তালুকদারের শ্যালক দহিসারা গ্রামের ইলিয়াস মোল্যার ছেলে নাফিজ মোল্যা (২০), দেলোয়ার মোল্যার ছেলে শাওন মোল্যা (১৮) ও একই গ্রামের ওয়াদুদ মুন্সীর নাতি ও পার্শ্ববর্তী সালথা উপজেলার বল্লভদী গ্রামের মন্টু মোল্যার ছেলে সাগর মোল্যা (২০)।

ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, কিছুদিন ধরে অভিযুক্ত নাফিজ, শাওন ও সাগর ওই কিশোরীকে নানাভাবে বিরক্ত ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। তাদের কু- প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় শনিবার সন্ধ্যায় অভিযুক্তরা মেয়েটিকে ধরে নিয়ে বাড়ির পাশের একটি পাটক্ষেতে হাত - মুখ বেঁধে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনার অভিযুক্তদের বিচার দাবি করে ভুক্তভোগীর পরিবার।

নাফিজ মোল্যার দুলাভাই পলাশ তালুকদার বলেন, আমার ভাই ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ছিলেন। গত নির্বাচনে ভাই হেরে গেছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা আমাদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের নামে মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে। এ ঘটনায় আমার শ্যালক কোন ভাবে জড়িত নন।
 
নগরকান্দা থানা অফিসার ইনচার্জ হাবিল হোসেন বলেন, ভুক্তভোগী ও তার পরিবার শনিবার রাতে থানায় এসে বিষয়টি আমাদের মৌখিকভাবে জানিয়েছে। মেয়েটি এখন ফরিদপুরে চিকিৎসাধীন রয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নগরকান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. সুমিনুর রহমান বলেন, অপরাধী যেই হোক না কেনো পুলিশ তাদের আইনের আওতায় আনবে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত কেউ ছাড় পাবে না।