মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষার অন্যতম পন্থা মেডিটেশন (ধ্যান) করতে এখন মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) দিতে হবে। প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে এই ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। যদিও আগের অর্থবছরগুলোর বাজেটে মেডিটেশন সেবাকে মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী উল্লেখ করে মূসক অব্যাহতির প্রস্তাব করা হয়েছিল।

গত দুই বছরে করোনার আতঙ্ক এবং আর্থিক অনটনে বিপর্যস্ত সাধারণ নাগরিকদের মানসিক স্বাস্থ্য ও মনোবল অটুট রাখতে মেডিটেশনের গুরুত্বের কথা বারবার বলেছে সরকার। অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায়ও বিষয়টি এসেছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গত অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় 'মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য মেডিটেশন সেবার ওপর ভ্যাট অব্যাহতি আরও এক বছর বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিলেন। করোনা মহামারিকালে ২০২০-২১ অর্থবছরেও মেডিটেশন সেবার ওপর থেকে ভ্যাট অব্যাহতির ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল।

এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে দুই বছরের জন্য এবং ২০১৪-১৫ অর্থবছরে যোগ-মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপ না করার প্রস্তাব করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, মেডিটেশন সেবা গ্রহণ করে হতাশাগ্রস্ত অনেক মানসিক ও শারীরিক ব্যাধিগ্রস্ত মানুষ মুক্তির প্রয়াস পায়। সে কারণে মেডিটেশন সেবার ওপর প্রযোজ্য মূসক প্রত্যাহারের প্রস্তাব করছি। তবে সরকারের দীর্ঘদিনের এ চিন্তায় এবার পরিবর্তন আসছে। প্রাতিষ্ঠানিক মেডিটেশনের জন্য এখন থেকে দিতে হবে ভ্যাট।