মৌলভীবাজারের শমসের নগর এলাকায় সিলেটগামী পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেনে আগুন লাগার ঘটনায় রেলওয়ের পক্ষ থেকে দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি কমিটির সদস্য ৪ জন। এর একটি কমিটিতে বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলীয় জোনের চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার এবং অপর কমিটিতে পূর্বাঞ্চলীয় জোনের চিফ মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারকে প্রধান করা হয়।

আগামী তিন দিনের মধ্যে অগ্নিকাণ্ডের কারণ উদঘাটন এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে এসব কমিটিকে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

জানা যায়, ঢাকা থেকে সিলেটগামী পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেনটি শনিবার সকালে কমলাপুর রেলস্টেশন ছেড়ে যায়। ট্রেনটি হবিগঞ্জের নোয়াপাড়া নামক স্থানে আসার পর পাওয়ার কারে ধোয়া দেখে দায়িত্বশীলরা সেখানে ট্রেন থামিয়ে ত্রুটি নিরসন করে সিলেটের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। পরে কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর স্টেশন থেকে ট্রেনটি দুই কিলোমিটার যাওয়ার পরই পাওয়ার কারসহ তিনটি বগি অগ্নিকাণ্ডের কবলে পড়ে।

এ সময় ট্রেনটি থেমে গেলে যাত্রীরা নেমে যান। ট্রেন থেকে তাড়াহুড়া করে নামতে গিয়ে অন্তত ৭ যাত্রী আহত হন। পরে যাত্রীদের সহযোগিতায় ট্রেনের লোকজন আগুন লাগা তিনটি বগি বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এ সময় ট্রেনের জেনারেটর বগি ও পার্শ্ববর্তী যাত্রীবাহী দু’টি এসি বগিতে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখা যায়।

খবর পেয়ে ঘটনার প্রায় ১ ঘণ্টা পর স্থানীয়দের সহযোগিতায় ও কমলগঞ্জের ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এবং মৌলভীবাজার, শ্রীমঙ্গল ও কুলাউড়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন থেকে সর্বমোট চারটি অগ্নিনির্বাপক দল এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলীয় জোনের মহাব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, চলন্ত অবস্থায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি কমিটিতে বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলীয় জোনের চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজারকে প্রধান করে এবং অপরটিতে পূর্বাঞ্চলীয় জোনের চিফ মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারকে প্রধান করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আগামী ৩ দিনের মধ্যে এসব কমিটিকে অগ্নিকাণ্ডের কারণ উদঘাটন এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। প্রতিটি কমিটিতে চারজন করে সদস্য রয়েছেন। দুটি তদন্ত কমিটির একটি হলো ডিভিশনাল কমিটি, অন্যটি জোনাল কমিটি।