ফেনীর দাগনভূঞায় মাদ্রাসার এক ছাত্রকে (৭) পায়ে শিকল বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগে ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অভিযুক্ত ওই অধ্যক্ষর নাম ফখরুল ইসলাম শাকিল (৩২)। তিনি ফেনীর সেনবাগ উপজেলার বড়চারিগাঁও গ্রামের নুর মিয়া জমাদার বাড়ীর হারুন অর রশিদের ছেলে ও দাগনভুঞা উপজেলার পূর্বচন্দ্রপুর ইউনিয়নের ডেউয়ালিয়া নুরানীয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার ভোরে নুরানীয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার ওই ছাত্রকে শিকল পরিহিত অবস্থায় স্থানীয় আমু ভূঞারহাট সড়ক থেকে পুলিশ উদ্ধার করে। ওই দিন রাতে শিশুর প্রতি নিষ্ঠুর আচরণ করার অপরাধে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফখরুল ইসলাম শাকিলকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী ও নির্যাতনের শিকার শিশুটির জানান,তার ছেলেকে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে মাদ্রাসার হেফজ বিভাগে ভর্তি করান। গত শনিবার ছেলেকে মাদ্রাসায় দেখতে গেলে সে নির্যাতনের বিষয়টি তার বাবাকে জানায়। তারপরও ছেলেকে বুঝিয়ে মাদ্রাসায় রেখে যান তিনি। পরে বাবার কাছে নালিশ করায় অধ্যক্ষ ফখরুল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে শিশুটির পায়ে লোহার শিকল বেঁধে মাদ্রাসার একটি কক্ষে আটকে রেখে লাঠি দিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করেন। রোববার ভোরে শিশুটি বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে পালিয়ে রাস্তায় নেমে আসলে টহলরত পুলিশের একটি দল তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

মামলার তদন্তকারী অফিসার এস আই মনির হোসেন জানান, মামলার পর অধ্যক্ষকে মাদ্রাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

দাগনভুঞা থানার ওসি মো. হাসান ইমাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার সকালে গ্রেপ্তার আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।