ফরিদপুরে আট বছরের এক শিশুকন্যা ধর্ষণের শিকার হয়েছে। রোববার বিকেল ৩টার দিকে ফরিদপুরের ঝিলটুলী মহল্লার একটি বাড়ির রান্না ঘরে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ওই শিশুকে উদ্ধার করে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই শিশুটির মা একটি মেসে রান্না করে। তার বাবা বিদেশে থাকেন। এ সুযোগে শিশুটিকে অন্য একটি মেসের রান্না ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে অচৈতন অবস্থায় ফেলে রেখে যায় ঝিলটুলী মহল্লার পিয়ন কলনী এলাকার বাসিন্দা আমিরুল ইসলাম (৩৫)।

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. কানিজ ফাতেমা জানান, শিশুটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। তাকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার বলেন, ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের দুটি দল কাজ করছে।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির নিয়মিত খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে মামলার দায়র করার প্রস্তুতি চলছে।

বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট) ফরিদপুরের সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট শিপ্রা গোস্বামী বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় যে মামলাটি ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় দায়ের করা হবে তার যাবতীয় দায়িত্ব নেবে ব্লাস্ট।