রায়পুরায় পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির ঘটনায় সাবেক সেনা, বিজিবি সদস্যসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল শুক্রবার নরসিংদীর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান।
গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মধ্য মেড্ডা এলাকার রাজিব মিয়া, পশ্চিম মেড্ডা এলাকার জয়নাল আবেদীন ও শাহাজাহান মিয়া, নবীনগর উপজেলার নোয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম ও কুমিল্লার হোমনা উপজেলার দৌলতপুর এলাকার নাজির আহম্মেদ।
তাদের কাছ থেকে দুই সেট পুলিশের পোশাক, এক জোড়া হ্যান্ডকাফ, দেশি-বিদেশি মুদ্রা ও ডাকাতির কাজে ব্যবহূত একটি প্রাইভেটকার উদ্ধার করা হয়।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান বলেন, রায়পুরা উপজেলার বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর নগর এলাকার আক্তার হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন কিশোরগঞ্জের ভৈরবে 'হাবিব সুপার মার্কেট' নামের একটি বিপণি বিতানে মোবাইল ফোনের ব্যবসা করেন। পাশাপাশি একটি হজ এজেন্সির সঙ্গে জড়িত তাঁরা। গত ১৬ জুন বিকেলে ভৈরবের দোকান বন্ধ করে ইউএস ডলারসহ নগদ ২৬ লাখ টাকা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন আক্তার। মোটরসাইকেলে তিনি মতিউর নগর উত্তরপাড়ার একটি সেতুর কাছাকাছি পৌঁছালে একটি সাদা প্রাইভেটকার তাঁর গতিরোধ করে। তখন সাদা পোশাকে ও পুলিশের পোশাক পরিহিত তিন ব্যক্তি তাঁকে মারধর করে টাকার ব্যাগ ও দুটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে দেলোয়ার হোসেন বাদী হেয় গত ১৯ জুন রায়পুরা থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। মালপত্র উদ্ধার ও জড়িত অন্য ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।