গাইবান্ধার সাঘাটায় যমুনা নদীর ক্রস বাঁধ ভেঙে ২ শতাধিক ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। শুক্রবার রাতে প্রবল স্রোতের চাপে ঘরবাড়িগুলো বিলীন হয়ে যায়।  ভাঙ্গন ঠেকাতে রাত থেকেই স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ ডাম্পিং অব্যাহত রেখেছে।

জানা গেছে, গাইবান্ধার সাঘাটার উপজেলার মুন্সিরহাটে মূল বাঁধের পূর্ব অংশে একটি ক্রসবাঁধ রয়েছে। শুক্রবার রাতে প্রবল স্রোতের চাপে প্রায় ২মিটার ক্রসবাঁধ ভেঙ্গে যায় । এতে বাঁধের পাশের প্রায় ২ শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি মূহুর্তে যমুনা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। সাঘাটা ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সুইট বিষয়টি গাইবান্ধা পানি উন্নয় বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীকে জানালে তারা দ্রুত এসে বাঁধের ভাঙ্গন ঠেকানোর জন্য জিও ব্যাগ ডাম্পিং শুরু করেন। রাতভর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার, এলাকাবাসী, পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙ্গন রোধে আপ্রান চেষ্টা করে।

বাঁধের ভাঙ্গনে ঘর হারানো বাবলু,জাহিদুল জানান, কোন কিছু বোঝার আগেই তীব্র স্রোতে ক্রসবাঁধটিতে ভাঙ্গন শুরু হলে মূর্হুতের মধ্যে তাদের ঘরবাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায় । এছাড়াও চান্দু, বাবু, জহুরুল, ছকিনা, পাশানসহ বাঁধের আশেপাশের প্রায় ২শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে যায় ।

এদিকে, বাঁধের দক্ষিণ অংশে ভাঙন আতঙ্কে বসবাসরতরা জানান, পরিস্থিতি দেখে ছেলেমেয়েকে নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ঘরবাড়ি সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন ।

স্থানীয় চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সুইট বলেন, এ ভাঙ্গন যদি ঠেকানো না যায় তাহলে মুন্সিরহাটে স্থাপিত স্কুল, মাদ্রাসাসহ আশেপাশের অনেক ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে যাবে। এছাড়াও সাঘাটা থানাসহ বাজার এলাকা হুমকির মুখে পড়বে।

গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান বলেন, ক্রসবাঁধটির ভাঙ্গন ঠেকানোর জন্য ডাম্পিংসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।