নেত্রকোনা শহরের মোক্তারপাড়ায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন এক গৃহবধূ। তিন সন্তানের মধ্যে একটি ছেলে ও দুটি মেয়ে শিশু। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর নামের সঙ্গে মিল রেখে ছেলে শিশুর নাম স্বপ্ন এবং দুই মেয়ে শিশুর নাম রাখা হয় পদ্মা ও সেতু।

শুক্রবার সিজারের মাধ্যমে তিন সন্তানের জন্ম দেন নেত্রকোনার মোহনগঞ্জের দাসপাড়া গ্রামের শেখ সাদী খানের স্ত্রী হাসি আক্তার। সন্তানরা যেন সুস্থ, সুন্দর এবং আলোকিত মানুষ হতে পরে সে জন্য এই মা সবার দোয়া কামনা করেছেন। 




জানা যায়, জেলা শহরের মোক্তারপাড়ার সেন্ট্রাল প্রাইভেট হাসপাতালে শুক্রবার সিজারের মাধ্যমে হাসি আক্তারের তিন সন্তানের জন্ম হয়। সিজারের দায়িত্বে ছিলেন ডাক্তার আফরিন সুলতানা ও মাকসুদুর রহমান। সেন্ট্রাল প্রাইভেট হাসপাতালে প্রথমবারের মতো সিজারের মাধ্যমে তিন সন্তানের সুস্থভাবে জন্ম হলো। তিন শিশুই সম্পূর্ণ সুস্থ আছে। 

মা হাসি আক্তার হাসপাতাল থেকে বলেছেন, আজ বাংলাদেশের গর্বের সেতু পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করা হয়। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে আমার সন্তানদের জন্ম হয়েছে, আমি ওই সেতুর নামানুসারে নাম রেখেছি স্বপ্ন, পদ্মা ও সেতু। 




তিন সন্তানের বাবা শেখ সাদী খান একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করেন। একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম হওয়ায় এবং সবাই সুস্থ থাকায় পরিবারে খুশি বিরাজ করছে জানিয়ে শেখ সাদী বলেন, তিন সন্তানের সুস্থতার দায়িত্ব আল্লাহর হাতে। আমি সবার কাছে দোয়া চাই, আমার সন্তানরা যেন সুস্থ থাকে। ওদেরকে যাতে আমি মানুষ করতে পারি এই আমার চাওয়া।

সিজারের দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক আরিফিন সুলতানা জানান, সেন্ট্রাল প্রাইভেট হাসপাতালে এই প্রথমবারের মতো সিজারে তিন সন্তান প্রসব হলো। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বিশেষ নজর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। যেন এই তিন সন্তান সম্পূর্ণ সুস্থ থাকে।




সেন্ট্রাল প্রাইভেট হাসপাতালের মালিক ফেরদৌস হাসান বলেন, এটাই আমাদের সফলতা। সিজারের মাধ্যমে তিন সন্তান আমার হাসপাতালে প্রসব হলো। মা ও শিশু সন্তানরা সম্পূর্ণ সুস্থ আছে। হাসপাতালের পক্ষ থেকে বিশেষ নার্সিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

এর আগে নারায়ণগঞ্জ ও বরিশালেও একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন দুই গৃহবধূ। তাদের নামও স্বপ্ন, পদ্মা ও সেতু রাখা হয়েছিল।