দীর্ঘ অপেক্ষা ও প্রতীক্ষার পর নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐতিহাসিক এই মুহূর্তের সাক্ষী হতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ সমবেত হয়েছিলেন টেলিভিশনের সামনে। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে জাকজমকপূর্ণ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার তিন লক্ষাধিক মানুষ।

শনিবার সকাল থেকে প্রায় সাড়ে ছয় ঘণ্টা বিদ্যুতহীন ছিল আদমদীঘি উপজেলা। তাতে টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখা থেকে বঞ্চিত হন এ উপজেলার বাসিন্দারা। এ নিয়ে এলাকার মানুষের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় সান্তাহার বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ নেসকো লিমিটেড কৃতপক্ষের কড়া সমালোচনা করেছেন তারা।

আদমদীঘি উপজেলা প্রশাসন ও আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মঞ্চ তৈরি করে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখার ব্যবস্থা করেন। এদিন সকাল থেকে সেখানে হাজার হাজার মানুষ সমবেত হন। কিন্তু সেতু উদ্বোধন অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার পরই সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ আসে বিকেল ৫টায়। ফলে উদ্বোধন অনুষ্ঠান দেখা থেকে বঞ্চিত হন আদমদীঘি উপজেলাবাসী।

এ ঘটনায় সান্তাহার বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ নেসকো থেকে বেলা ১টা ৬ মিনিটে গ্রাহকদের মোবাইল ফোনে দু:খ প্রকাশ করে ম্যাসেজ পাঠানো হয়।

আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খান রাজু ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, বিদ্যুৎ বিভাগের কাছ থেকে এমন আচরণ উপজেলাবাসি আসা করেননি।

সান্তাহার বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ নেসকো লিমিটেডের নির্বাহী প্রকৌশলী রোকনুজ্জামান জানান, সান্তাহার গ্রিডে হঠাৎ করে ফ্লাসিং হওয়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। সেটা মেরামত করে পুনরায় চালু করতে বিলম্ব হয়।