বগুড়ার গাবতলীতে একটি বিদ্যালয়ে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজে এ ঘটনা ঘটে।

এতে আহত হয়েছেন অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষক। ঘটনার পর অধ্যক্ষ ও কলেজের সভাপতির কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা।

আহত তিনজন হলেন- অধ্যক্ষ রোজিনা আকতার নাইস, শিক্ষক নাজমুন নাহার ও হাবিব হাসান বিবেক।

স্থানীয়রা জানান, গাবতলীর পুরানবন্দনে ২০০৯ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর থেকে প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা খাজা নাজিম উদ্দীন দায়িত্ব পালন করে আসছেন। নন এমপিও প্রতিষ্ঠানটির প্রথম অধ্যক্ষ ছিলেন আশাফুদ্দৌলা রুবেল। এরপর তাকে সরিয়ে দিয়ে সভাপতি তার মেয়ে রোজিনা আকতার নাইসকে অধ্যক্ষ করেন। এ নিয়ে শিক্ষকদের দু'পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল।

শিক্ষকদের একাংশের অভিযোগ, সভাপতির মেয়ের কোনো অভিজ্ঞতা না থাকলেও তাকে অধ্যক্ষ করা হয়েছে। তাকে অপসারণ করা এবং বেতন-ভাতার দাবিতে শিক্ষকরা আন্দোলন শুরু করেছেন। এ নিয়ে শনিবার দুপুরে অধ্যক্ষের সঙ্গে শিক্ষকদের একাংশের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় দু'পক্ষই গাবতলী মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। গাবতলী মডেল থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, উভয় পক্ষই থানায় মৌখিকভাবে জানিয়েছে। লিখিত অভিযোগ দিলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ রোজিনা আকতার নাইস বলেন, শিক্ষক ও কিছু বহিরাগত ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানে ঢুকে অন্যায়ভাবে আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছেন। তারা কক্ষেও তালা দিয়েছেন।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা অভিযোগ করেন, চাকরি দেওয়ার কথা বলে সভাপতি দীর্ঘদিন ধরে তাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নিয়ে রেখেছেন। এখন পর্যন্ত কোনো বেতন-ভাতা দেওয়া হয়নি। এমপিভুক্ত হওয়ার ব্যবস্থাও সভাপতি করেননি।