পাবনার ফরিদপুর উপজেলায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী আশরাফুল কবীর (৪৫) গুরুতর আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফরিদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার রাত ১০টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে সারা দেশের মতো ফরিদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ নানান কর্মসূচি গ্রহণ করে। তারই অংশ হিসেবে রাতে সাংস্কৃতিক ও সঙ্গীতানুষ্ঠান চলছিল। রাত ১০ টার দিকে ফরিদপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস ও তার ছেলে তারিক আজিজ রাতুলসহ ১০/১২ জনের একটি দল অনুষ্ঠান স্থলে আসে। এ সময় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো নিয়ে এবং পূর্ব শত্রুতার জেরে মঞ্চের পেছনে চায়ের দোকানে অবস্থান করা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কবীরের সঙ্গে তাদের বচসা হয়। এক পর্যায়ে কবীরকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। 

রাতেই তাকে উদ্ধার করে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফরিদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। 

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, তুচ্ছ ঘটনা থেকে এমনটি ঘটেছে। বিস্তারিত জানার পর সাংবাদিকদের অবহিত করা হবে। 

আহত আওয়ামী লীগ নেতা আলী আশরাফুল কবীর অভিযোগ করেন, উপজেলার পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস ও তার ছেলে তারিক আজিজ রাতুলসহ ১০/১২ জনের একদল পদ্মা সেতুর অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো নিয়ে বচসার এক পর্যায়ে তাকে এলোপাথাড়ি কোপায়। 

এই ব্যাপারে আব্দুল কুদ্দুস ও তার ছেলের বক্তব্য জানতে তাদের মোবাইলে ফোন দেওয়া হয়। কিন্তু মোবাইল বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।