লর্ডসে ২৭৭ ও ট্রেন্ট ব্রিজে ২৯৯ রান তাড়া করে রোমাঞ্চকর জয় পেয়েছিল ইংল্যান্ড। ওই দুই টেস্টের ধারাবাহিকতায় হেডিংলিতে ২৯৬ রানের টার্গেট পেয়েছে স্বাগতিকরা। জিতলে এক সিরিজে টানা তিনবার আড়াইশোর বেশি রান তাড়া করবে জিতবে ইংল্যান্ড। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড আছে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লড়াইয়ে।

চতুর্থ দিন শেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৮৩ রান। শেষ দিনে জয়ের জন্য তাদের দরকার আর ১১৩ রান, হাতে উইকেট ৮টি। সিরিজে দ্বিতীয় সেঞ্চুরির সম্ভাবনা জাগিয়ে ১০৫ বলে ৮১ রানে অপরাজিত আছেন পোপ। প্রথম দুই টেস্টের সেঞ্চুরিয়ান রুট খেলছেন ৮০ বলে ৫৫ রানে। দুইজনের অবিচ্ছিন্ন জুটির রান ১৩২।

অবস্থাদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে খুব সহজেই জিততে যাচ্ছে স্বাগতিকরা। কিন্তু টানা তৃতীয় হার এড়াতে নিউজিল্যান্ডকে করতে হবে দারুণ কিছু। শেষ দিনে দ্রুত ৮ উইকেট শিকার করে হোয়াইওয়াশ এড়াতে চাইবে কিউইরা।

রোববার নিউজিল্যান্ড তৃতীয় দিনের ৫ উইকেটে ১৬৮ রান নিয়ে খেলা শুরু করে। আগের দিনের অপরাজিত ব্যাটার ডারেল মিচেল করেন ৫৬ রান। অপর ব্যাটার টম ব্লানডেল ৮৮ রান করে অপরাজিত থাকেন। তাদের ষষ্ঠ উইকেটের জুটিতে ওঠে ১১৩ রান। কিন্তু শেষের দিকের ব্যাটাররা রান না পাওয়ায় ইংল্যান্ডকে কঠিন লক্ষ্য দিতে পারেনি কিউইরা। নিউজিল্যান্ডের শেষ চার ব্যাটারের মিলিত অবদান ১৫ রান।

এক সময় ৫ উইকেটে ২৭৪ রান থেকে ৩২৬ রানেই শেষ হয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের ইনিংস। অর্থাৎ, দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের শেষ ৫ উইকেট পড়ল মাত্র ৫২ রানে। ৬৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিলেন ইংল্যান্ডের জোরে বোলার জ্যাক লিচ। ৬৬ রানে ৩ উইকেট ম্যাথু পটের। একটি করে উইকেট পেয়েছেন জেমি ওভারটন এবং রুট।