পদ্মা সেতু চালু হলেও ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়নি বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, ‘আমরা ফেরি বন্ধ করে দেইনি, সেখানে ছয়টি ফেরি চাহিদা অনুযায়ী পারপার করছে। সোমবারও শিমুলিয়া, মাঝির ঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল করেছে। আমাদের যেভাবে চাহিদা থাকবে সেভাবে ব্যবহার করব।’

সেতু চালুর পর ফেরি না থাকায় মোটরসাইকেল চালকদের পারাপারে দুর্ভোগের মধ্যে মঙ্গলবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

পদ্মা সেতু গত রোববার খুলে দেওয়ার পর যানবাহন না পেয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। তবে প্রথম দিনের পর মোটর সাইকেলের সেতুতে ওঠা বন্ধ করে দিলে বাইকারররা ফেরিও না পেয়ে পড়েন বিপাকে। সোমবার একটি মাত্র ফেরি চলেছিল, সেটিও ডুবোচরে আটকা ছিল চার ঘণ্টা। পরে আর কোনো ফেরি চলেনি।

প্রতিমন্ত্রী খালিদ বলেন, ‘আমাদের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ স্থাপনা পদ্মা সেতু। তার মানে এ নয়, আমাদের অন্যান্য যোগাযোগ বন্ধ হবে।’

এদিকে মঙ্গলবার বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল আহমেদ বলেন, ঘাটে ছয়টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্য চারটি সচল। পদ্মা নদীতে এখন প্রচণ্ড স্রোত। ফেরি চালালে ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে। সকাল থেকে ১৫-২০টি মোটরসাইকেল ঘাটে এসে ঘুরে চলে গেছে। যদি ঘাটে একটি ফেরি পূর্ণ করার মতো মোটরসাইকেল আসে, তাহলে ফেরি এ ঘাট থেকে ছাড়া হবে।