নড়াইলে অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানো প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, এ ঘটনায় আমরা সত্যিই দুঃখিত, এ ধরনের একজন শিক্ষককে জুতার মালা পরিয়ে দিয়েছে উত্তেজিত জনতা। এ ঘটনায় কার কতটুকু গাফিলতি তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে বুধবার সচিবালয়ে সার্বিক আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে এবং শিল্পাঞ্চলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সভা শেষে এ কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

ধর্ম অবমাননার অভিযোগে নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রের ফেসবুক পোস্টকে ঘিরে উত্তেজনা তৈরি হয়। এ ঘটনায় অধ্যক্ষ “অভিযুক্ত” ছাত্রের পক্ষ নিয়েছেন এমন গুজব ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেন। এ সময় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারও উপস্থিত ছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মনে হয়েছে, উত্তেজিত জনতা এত বেশি একত্র হয়ে গিয়েছিল, সেখানে জেলা প্রশাসক-পুলিশ সুপারের কিছু করার আগেই ঘটনা ঘটে গিয়েছিল। প্রিন্সিপালকে জুতার মালা পরানোর ঘটনা আসলে দুঃখজনক।

নড়াইলে যে ঘটনা ঘটেছে সেখানে পুলিশ ছিল, এক্ষেত্রে পুলিশের কোনো দায় দেখেন কি না- জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান খান বলেন, আমি তো বলেছি কেউ কোনো দায়িত্ব অবহেলা করলে পুলিশ করুক কিংবা আমাদের জেলা প্রশাসক করুক কিংবা যেই করুক কিংবা কোনো জনপ্রতিনিধি করে থাকুক, সেখানে সবাই ছিল, আমি শুনতে পেয়েছি। সেখানে কার কতখানি গাফিলতি রয়েছে, সেই অনুযায়ী আমরা খতিয়ে দেখছি।

এদিকে সাভারে একজন শিক্ষককে খুন করার মতো ঘটনা ঘটেছে এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা নিয়ে কী বলব? যারা আমাদের শিক্ষা দেন তাদের যদি ছাত্র হত্যা করে- তাহলে আমাদের কতখানি নৈতিক অবক্ষয় হয়েছে আপনারা চিন্তা করুন! তবে আমাদের যেটা করণীয় সেটা করেছি, আমরা তার বাবাকে ধরেছি, শিগগির তাকেও ধরে ফেলবো এবং আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা হবে।