সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যা মামলায় তাদের দুই সন্তানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। সোমবার জেলা সমাজ সেবা অফিস কার্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টাব্যাপী তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

চট্টগ্রাম পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবু জাফর মো: ওমর ফারুক বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশে তিনি জেলা সমাজসেবা অফিসারের কক্ষে শিশু দুটির দাদা আব্দুল ওয়াদুদ মিয়ার উপস্থিতে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এ সময় জেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা, প্রভেশনাল অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

বাবুল আক্তারের বাবা আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া বলেন, তার দুই নাতী-নাতনীকে তদন্ত কর্মকর্তা তিন ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেন। ছোট বাচ্চাদের টানা তিন ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা অমানবিক। 

তিনি আরও বলেন, বাবুল আক্তার একজন সৎ, বলিষ্ট ও ন্যায়নিষ্ঠ পুলিশ অফিসার ছিলেন। তিনি ৫ বার পিপিএম পদক পেয়েছেন। তাকে ষড়যন্ত্র করে মামলায় ফাসানো হয়েছে। মূল অভিযুক্ত মুসাকে গ্রেপ্তার করলেই মামলার রহস্য উন্মোচন হবে। 

বাবুল আক্তারের ভাই অ্যাড. হাবিবুর রহমান লাবু বলেন, তদন্ত কর্মকর্তা হাইকোর্টের আদেশ ভঙ্গ করে সাক্ষ্যগ্রহণ চলাকালে বাইরে গিয়ে ফোনে কথা বলেছেন। এ ছাড়া তিনি তদন্ত কক্ষে হাইকোর্টের নিদেশর্না  না মেনে অতিরিক্ত লোক প্রবেশ করিয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

তবে তদন্ত কর্মকর্তা আবু জাফর মোঃ ওমর ফারুক এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। 

জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আরশাদুল ইসলাম বলেন, তিনি হাইকোর্টের নিদের্শনা পালন করেছেন। সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার ও  প্রয়াত মাহমুদা আক্তার মিতু দম্পত্তির দুই সন্তানকে কোর্টের আদেশে তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ সকলের সামনে সাক্ষ্য গ্রহণের ব্যবস্থা করেছেন।