নেদারল্যান্ডসে সফররত কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক সে দেশের কৃষিমন্ত্রী মি. হেনক স্টেগহওয়ারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এ সময় দুই দেশের মাঝে কৃষি-প্রযুক্তি খাতে সহযোগিতা ও বিনিয়োগ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সোমবার কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডাচ কৃষিমন্ত্রী ফ্লোরিয়াডে এক্সপোতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের জন্য বাংলাদেশের কৃষিমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। এর ফলে নেদারল্যান্ডসসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত  দর্শনার্থী ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও কৃষিপণ্য উৎপাদন এবং পণ্যের ব্যাপ্তি ও বহুবিধ ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পারবে। 

আব্দুর রাজ্জাক ডাচ কৃষিমন্ত্রীকে  বাংলাদেশ ও নেদাল্যান্ডসের বন্ধুত্বের ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে সম্প্রতি দ্য হেগ-এ ডাচ কৃষি মন্ত্রণালয়ের অংশীদারিত্বে সফলভাবে আয়োজিত এগ্রি-বিজনেস কনক্লেভ এবং অংশগ্রহণকারী ডাচ অ্যাগ্রো কোম্পানিগুলো সম্পর্কে অবহিত করেন। ড. রাজ্জাক ওয়াগেনিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার ফলপ্রসূ বৈঠক সম্পর্কেও ডাচ কৃষিমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

তিনি বলেন, ‘গত এক দশকে বাংলাদেশ কৃষি উৎপাদনে উল্লেখযোগ্যভাবে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। কিছু প্রধান খাদ্যশস্য, শাক-সবজি, মৎস্য উৎপাদন ও পশুসম্পদ লালন-পালন ইত্যাদি উৎপাদনের দিক থেকে বাংলাদেশ এখন বিশ্বব্যাপী শীর্ষ দশে রয়েছে।’

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের খাদ্যের চাহিদা সংরক্ষণ এবং জলবায়ু পরিবর্তনজনিত জটিলতা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার বাংলাদেশের কৃষিকে রূপান্তরিত করতে মনোযোগী। এরই মধ্যে কৃষিকে জলবায়ু-সহনশীল করা, রাসায়নিক সার ও পানির ব্যবহার কমানো, ডিজিটালাইজড উৎপাদন ও বণ্টন, কৃষি-লজিস্টিক খাতকে উন্নত করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনার আওতায় দীর্ঘমেয়াদী গবেষণা ও পরিবর্তন আনতে নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে  নিবিড়ভাবে কাজ করতে আগ্রহী।’ মন্ত্রী ডাচ কৃষি-ব্যবসা এবং কৃষি প্রযুক্তি বাংলাদেশে আকৃষ্ট করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে তার সমর্থন ব্যক্ত করেন।

এ দিন ডাচ কৃষিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পাশাপাশি কৃষিমন্ত্রী রাজ্জাক নেদারল্যন্ডসে মাঠ পরিদর্শনে আলুর বীজ উৎপাদন এবং আলুর বীজের গুনাগুন নির্ণয় ও সত্যায়ন সংক্রান্ত ল্যাবরেটরি পরিদর্শন করেন।