রাতে আষাঢ়ের একটানা বৃষ্টি। সকালে কাদাময় শহরে বের হয়ে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া মাঠে রওনা দেন মুসল্লিরা। রৌদ্রজ্জল সকাল দেখে মুসল্লিদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসে। কাদাময় মাঠে সকালে পৌনে ৯টায় হাজার হাজার মুসল্লি কাদা-পানি উপেক্ষা করে ঈদগাহ মাঠে জড়ো হয় ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করতে। তখন রৌদ্রজ্জল আকাশে সূর্যের কিরণ যেন সৃষ্টিকর্তার অপার মহিমাকে জানান দিচ্ছে।

এমন সুন্দর আবহাওয়ায় আজ নজিরবিহীন নিরাপত্তা-ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে দেশের বৃহত্তম ঈদুল আজহার জামাত হয়েছে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে। ১৯৫তম জামাতে অসুস্থতার কারণে আসতে পারেননি শোলাকিয়া ঈদগাহ খতিম মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ। তার স্থলে জামাতে ইমামতি করেন মারকাস মসজিদের খতিব হজরত মাওলানা হিফজুর রহমান খান। নামাজ শুরু হয় সকাল ৯টায়।

জেলা প্রশাসক শামীম আলম, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ, জেলা পরিষদের প্রশাসক জিল্লুর রহমান, উপ-সচিব হাবিবুর রহমান, পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ, মাঠ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেরা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী সিদ্দিকী, জেলায় কর্মরত বিভিন্ন বিভাগের উধ্বর্তন কর্মকর্তাসহ রাজনীতিবিদসহ হাজারো মুসল্লি এবার শোলাকিয়া নামাজ আদায় করেন।

শোলাকিয়ায় নামাজ পড়ার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে মুসল্লিরা সমবেত হয়েছেন। গ্রামের মুসল্লিরা সাইকেল ও পায়ে হেঁটে জামাতে অংশ নেন। এদিকে, বাংলাদেশ রেলওয়ে শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে মুসল্লিদের যাতায়তের সুবিধার জন্য ‘শোলাকিয়া স্পেশাল এক্সপ্রেস ট্রেন’ নামে দু’টি বিশেষ ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা নেন। ট্রেন দুইটি ভৈরব ও ময়মনসিংহ থেকে সকালে ছেড়ে আসে।

কিশোরগঞ্জ সদরের কাটাবাড়িয়া গ্রামের রশিদ মিয়াসহ একাধিক মুসল্লি জানান, তারা ২৫/৩০ বছর ধরে শোলাকিয়ায় নামাজ আদায় করছেন। বড় মাঠে বিপুলসংখ্যক মুসল্লির সাথে নামাজ পড়লে দীর্ঘদিনের ইচ্ছা আল্লাহ কবুল করেন। আজ নামাজ পড়ে শান্তি পেয়েছি।

শক্তিশালী নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে র‌্যাব, পুলিশ, আর্মড পুলিশ, ডিবি এবং সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিয়োজিত ছিলেন। নামজের পরে মোনাজাতে মাওলানা হিফজুর রহমান খান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবারের সদস্যদের, প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসরাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানসহ স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনাসহ বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য আল্লাহর দরবারে দোয়া করেন।

মাঠ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী বলেন, কোরবানি আনুষ্ঠানিকতা থাকার পর এবার শোলকিয়া হাজার হাজার মুসল্লি জামাতে নামাজ আদায় করেন। অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে জামাত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সবার কাছে তিনি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।