পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় চাকামইয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা মজিবর ফকিরের রোষানল থেকে বাঁচতে এবং তার নির্যাতন, হামলা ও মামলায় অতিষ্ট হয়ে গামইরবুনিয়া আবাসনের বাসিন্দারা প্রসাসনের সহায়তা কামনা করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কলাপাড়া প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার মো. তৌহিদুর রহমান মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবাসনের বাসিন্দা ডলি বেগম বলেন, গত ২৭ মে আবাসনের পুকুরের বাঁধ কেটে প্রায় ৯০ হাজার টাকার মাছ চেয়ারম্যান ও তার লোকজন লুট করে নেয়। আবাসনের ৭০ পরিবার তাদের বাঁধা দিলে চেয়ারম্যানের লোকজন নারীদের শ্লীলতাহানি করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় চেয়ারম্যান মজিবর ফকিরকে আসামী করে একটি মামলা করেন আবাসনের বাসিন্দা কহিনুর বেগম। এ মামলার পর থেকে আরও আতঙ্কে রয়েছে আবাসনের বাসিন্দারা।

গ্রামবাসী বলেন, চেয়ারম্যানের হুমকি থেকে বাঁচতে চেয়ারম্যানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে সাত ধারা মামলা রুজু করা হয়েছে। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত আমোদের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যানের ইন্ধনে বিভিন্ন ধরণের মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়। যা বর্তমানে সিআইডি ও পটুয়াখালী পুলিশ সুপারের তদন্তাধীন রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে গ্রামবাসী অভিযোগ করেন, চেয়ারম্যানের মুখোশধারী সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে তারা আতঙ্কে দিনরাত পার করছেন। এসময় প্রশাসনের কাছে নিজেদের নিরাপত্তা দাবি করেন তারা।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মজিবর ফকির জানান, তার কোনো বাহিনী নেই এবং কারো বিরুদ্ধে তিনি কোনো মামলা করেননি। নির্বাচনে প্রতিপক্ষরা তাকে ফাঁসাতে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা কুৎসা ছড়াচ্ছে। এমনকি যারা সংবাদ সম্মেলন করেছে তারা আবাসনের বাসিন্দা নয় বলেও দাবি করেন তিনি।