ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে 'পুলিশের গুলিতে' নিহত আট মাসের শিশু সুরাইয়ার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে মিরডাঙ্গী ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে সুরাইয়ার দাফন সম্পন্ন হয়।

জানাজায় উপস্থিত ছিলেন ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান, সাবেক এমপি ইয়াশিন আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুলকার কবীর নাইম স্টিভ, উপজেলা চেয়ারম্যান মুন্নাসহ স্থানীয়রা। এদিন কয়েক হাজার নারী পুরুষ সুরাইয়ার মরদেহ দেখার জন্য ছুটে আসেন।

এর আগে ময়নাতদন্ত শেষে সুরাইয়ার মরহেদ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ। মরহেদ পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন সুরাইয়ার স্বজনরা। সুরাইয়ার বাবা-মা, আত্মীস্বজনসহ স্থানীয়রা কোনোভাবেই এমন মর্মান্তিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না।

বুধবার ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অভিযোগ উঠেছে, এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলি চালালে সুরাইয়ার মৃত্যু হয়। পুলিশের গুলিতে শিশুটির মাথার খুলি উড়ে যায়।

বাচোর ইউনিয়নের ভিএফ বালিকা বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ভোটের ফল ঘোষণা করার সময় এমন ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু সুরাইয়া মিরডাঙ্গী দিঘীপাড়া এলাকার বাদশাহ মিয়ার মেয়ে।

নির্বাচনী সহিসংতায় পুলিশের গুলিতে নিহত সুরাইয়ার বাবা বাদশা মিয়া বলেন, মেয়ে হারানোর শোক কিভাবে সহ্য করব বুঝতে পারছিনা।

নিহত সুরাইয়ার মা মিনারা বেগম বলেন, সুরাইয়া কোলে ছিল। হঠাৎ করে বিকট শব্দে কোল থেকে সুরাইয়া বাতাসের গগিতে উড়ে যায়। আমি নিজেও পড়ে যাই। এরপর কী হয়েছে কিছু বলতে পারিনা। পরে জানতে পারি আমার মা (সুরাইয়া) আর নেই। কী অপরাধ ছিল আমার মেয়ের? আমরা গরীব মানুষ, কোনো বিচারও হয়তো পাবো না। এভাবে মেয়েকে হারাতে হবে জানলে ভোট দিতেও আসতাম না।

রাণীশংকৈল থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম জাহিদ ইকবাল বলেন, তদন্ত চলছে। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা দায়ের হয়নি। নিহত শিশুর মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষ পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে শিশুটির দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান বলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেট রাম কৃষ্ণ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাজিয়া সুলতানা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নূরে আলমকে নিয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত আগামী কমিটি আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবেন। তদন্ত প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।