মৌলভীবাজারের মনু প্রকল্পের আওতাধীন কাউয়াদীঘি হাওরের জলাবদ্ধতা নিরসন ও রাজনগর-বালাগঞ্জ সড়কের ভুরভুরি ছড়ার ওপর নবনির্মিত অপরিকল্পিত কালভার্ট অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে মৌলভীবাজার হাওর রক্ষা সংগ্রাম কমিটি।

ভুক্তভোগী চাষিরা শনিবার জেলা সদরের চৌমোহনা চত্বরে এ কর্মসূচি পালন করেন।

হাওর রক্ষা সংগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি মঈনুর রহমান মগনুর সভাপতিত্বে এবং সদর উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজন আহমদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন হাওর রক্ষা জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আহমদ চৌধুরী, কমিউনিস্ট পার্টির জেলা শাখার সহসাধারণ সম্পাদক মাশুক মিয়া, হাওর রক্ষা সংগ্রাম কমিটি সদর উপজেলার সভাপতি আলমগীর হোসেন, জেলা শাখার সদস্য খছরু চৌধুরী।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, কাশিমপুর পাম্প হাউস আজ (শনিবার) নামমাত্র পানি নিস্কাশন করেছে। পাম্প কর্তৃপক্ষ বিদ্যুৎ ঘাটতির অজুহাতে পাম্প বন্ধ রাখছে জলমহাল ইজারাদারদের স্বার্থ রক্ষায়। ফলে হাওরের আমন জমি পানিতে টইটম্বুর। আমন রোপণের সময় চলে যাচ্ছে। দ্রুত পানি নিস্কাশন না করা হলে হাওরের প্রায় তিন হাজার হেক্টর জমিতে আমন চাষ অত্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই অবিলম্বে কাউয়াদীঘি হাওরের জলাবদ্ধতা নিরসনে পদক্ষেপ নিতে হবে। এ সময় রাজনগর-বালাগঞ্জ সড়কের ভুরভুরি ছড়ায় নির্মিত অপরিকল্পিত কালভার্টটি ভেঙে তা উঁচু করে নির্মাণের দাবিও জানান তাঁরা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) আবদুল হান্নান জানান, লোডশেডিংয়ের চাপ সামলে দিনে এক-দুটি ও রাতে পাঁচ-ছয়টি পাম্প সচল রেখে পানি সেচ দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া কুশিয়ারার পানির স্তর নামায় ৬ ও ৩ ব্যান্ড রেগুলেটরের ৯টি গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। কৃষকদের স্বার্থে কাউয়াদীঘি হাওরের পানি নিস্কাশনের সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।