ময়মনসিংহে ডিবি ও ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে মোটরসাইকেল চোর চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেপ্তার হয়েছে। শনিবার আদালতে তুলে তাদের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তিনটি মোটরসাইকেল। পুলিশ জানিয়েছে, নিমিষেই মোটরসাইকেল নিয়ে পালানো এবং বিভিন্ন অংশ নিখুঁতভাবে পরিবর্তন করে বিক্রি করত ওই চক্রের সদস্যরা।

সংশ্নিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ জুলাই দুপুরে উপজেলার পশু হাসপাতাল রোডে নিজের বাসার নিচে মোটরসাইকেল রেখে দ্বিতীয় তলায় যান ব্যবসায়ী নাজমুল বারী পিপুল। মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে মোটরসাইকেল নিয়ে যায় দুই ব্যক্তি। সেই চুরির দৃশ্য ধরা পড়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজে।

ওই চুরির মামলায় রবিন মিয়া (২২) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বাড়ি গৌরীপুরের ডৌহাখলা ইউনিয়নের নন্দীগ্রামে। তার কাছ থেকে একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। গত ৪ জুলাই গৌরীপুর থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে পালানোর সময় ধাওয়া খেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সামনে সেটি ফেলে পালিয়ে যায় রবিন।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাছিনুর রহমান বলেন, রবিন গৌরীপুর, ঈশ্বরগঞ্জ ও নান্দাইল অঞ্চলে মোটরসাইকেল চুরি করে। তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে চাওয়া হয়েছে।

এদিকে, ডিবির অভিযানে ভালুকা ও গফরগাঁও এলাকা থেকে চক্রের চার সদস্য গ্রেপ্তার হয়েছে। গত শুক্রবার রাতে ভালুকা উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের সামনে ও গফরগাঁও থানার জন্মেজয় বিশ্বরোড মোড় এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলো অন্তর মিয়া, মো. সুজন, মাহবুব আলম ও খোকন মিয়া। তাদের কাছ থেকে দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

ডিবি জানিয়েছে, মোটরসাইকেল চোর চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে ভালুকা মডেল থানায় মামলা হয়েছে। চক্রটি চোরাই মোটরসাইকেল কেনাবেচার সঙ্গে জড়িত। ডিবির ওসি মো. সফিকুর রহমান বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা চুরির মোটরসাইকেলে এমনভাবে পরিবর্তন আনত, মালিকের সামনে চালালেও বুঝতে পারত না। সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।