জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, অর্থনীতি যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য সরকার কঠিন ও সাহসী উদ্যোগ নিয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে অনেক দেশে যখন লঙ্গরখানা খোলা হচ্ছে সেখানে সরকার এই সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তেলের মূল্য বৃদ্ধি এবং বিদ্যুৎ নিয়ে যারা আন্দোলন করছে তারা ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এক মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারেনি।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের আয়োজনে ‘অশ্রুঝরা আগস্টে শোকসঞ্জাত শক্তির অন্বেষা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এসব কথা বলেন।  

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে যারা হত্যা করেছে তারা এখনও দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের লিপ্ত। তারা শেখ পরিবারের রক্তকে ভয় পায়। যার কারণে দশ বছরের শেখ রাসেলকেও তারা হত্যা করেছে। জাতির পিতার রক্ত বৃথা যেতে দেওয়া যাবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সকল খুনিদের বিচার এই দেশে করবেন।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শোষিতদের গণতন্ত্রের প্রতীক ছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতে পারেনি যে বাঙালিরা তাকে হত্যা করতে পারে। বিশ্বের ইতিহাসে অনেক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা আছে, তবে বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে তা বিরল।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে এই সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর, সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি এম নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী প্রমুখ।  

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কলামিস্ট ও সিনিয়র সাংবাদিক বিভু রঞ্জন সরকার, স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মিল্টন বিশ্বাস।